advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ডিবি পরিচয়ে ওরা লুটপাট চালাত

নিজস্ব প্রতিবেদক
৫ ডিসেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:২৩
advertisement

ডিবি পুলিশ পরিচয়ে মামলা ও মিডিয়ায় প্রচারের ভয় দেখিয়ে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে নগদ টাকা, মোবাইল ফোনসহ মূল্যবান জিনিস ছিনিয়ে নেওয়া চক্রের মূলহোতাসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- মহসিন শেখ, আনিছুর রহমান, সেন্টু মুন্সি, জুয়েল মিয়া, শাহীন শেখ, মহব্বত শেখ, আবুল কালাম, সুলতান মোল্লা, হেমায়েত শেখ ও কাইয়ুম শেখ। গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তারকালে একটি প্রাইভেট কার, ডিবির জ্যাকেট, ওয়্যারলেস সেট, এক জোড়া হ্যান্ডকাফ ও পুলিশ লেখা স্টিকার উদ্ধার করা হয়। ডিবির সহকারী

কমিশনার (এসি) ফজলুর রহমান জানান, ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় কখনো রিকশাচালক, কখনো ফেরিওয়ালা সেজে এ চক্রের সহযোগীরা টার্গেট নির্ধারণ করত। কথার ছলে তারা সেই টার্গেট করা ব্যক্তিকে বলত- রাস্তায় কিছু রিয়াল (সৌদি মুদ্রা) পেয়েছেন, কিন্তু তিনি অশিক্ষিত মানুষ কীভাবে এটা ভাঙাতে হয় জানেন না। সেই রিয়াল ভাঙিয়ে দিলে

বিনিময়ে কিছু টাকা দেবেন বলেও প্রস্তাব দেন। কথায় কথায় ওই প্রতারক টার্গেট করা ব্যক্তির ফোন নম্বরও নেন। পরে যোগাযোগ করে তাদের কাছে আরও রিয়াল আছে এবং সেগুলো অর্ধেক দামে বিক্রি করবেন বলে জানান। এমন প্রলোভনে লোকটি রাজি হলে টাকা নিয়ে তাদের পছন্দমতো জায়গায় আসতে বলা হয়। এদিকে চক্রের অপর একটি দল ভুয়া ডিবি পুলিশ সেজে নির্ধারিত স্থানে অপেক্ষা করতে থাকে। কথিত রিয়ালের মালিক রিকশাচালক বা ফেরিওয়ালা টাকার বিনিময়ে কাপড়ে মোড়ানো কাগজের বান্ডেল ধরিয়ে দিয়ে বলেন, পুলিশ আসছে তাড়াতাড়ি চলে যান। এ কথা বলে রিয়াল বিক্রেতা টাকা নিয়ে সটকে পড়েন। কিন্তু ক্রেতা সামনে এগোতেই ওঁৎ পেতে থাকা ভুয়া ডিবি দলের সদস্যরা তাকে গাড়িতে উঠিয়ে নেন। এরপর তার কাছে অবৈধ রিয়াল আছে, তার বিরুদ্ধে মামলা/মিডিয়ায় প্রচার করার ভয় দেখিয়ে কাছে থাকা নগদ টাকা, মোবাইল ফোন বা অন্য মূল্যবান জিনিস ছিনিয়ে নেয়। রিয়েল ক্রেতার কাছে এটিএম কার্ড থাকলে বুথ থেকে টাকা তুলে নেন এবং মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা ট্রান্সফার করে নেন। এরপর ভিকটিমকে সুবিধাজনক স্থানে নামিয়ে দিয়ে ভুয়া ডিবির দলটি চলে যায়।

আটকদের বিরুদ্ধে ঢাকা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় এ ধরনের অনেক চক্র রয়েছে। পলাতক ও অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

advertisement
Evaly
advertisement