advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

বৈশ্বিক মহামারী করোনা
কোয়ারেন্টিন ভাতা পাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা

আবু আলী
৫ ডিসেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:৪৭
advertisement

করোনা চিকিৎসায় যুক্ত চিকিৎসক, নার্স ও অন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য বিশেষ ভাতা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে নির্দিষ্ট হারে এ ভাতা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছে অর্থ বিভাগ। যেসব ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী কোয়ারেন্টিন সময়ে হোটেলে না থেকে নিজ আবাসস্থলে থেকেছেন কেবল তাদেরই এই ভাতা দেওয়া হচ্ছে। চলতি বছরের ২৯ জুলাই থেকে তারা এই ভাতা পাবেন। ভাতার বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে অর্থ বিভাগ। তবে দায়িত্ব পালনকালে কেউ এক মাসে ১৫ দিনের বেশি ভাতা নিতে পারবেন না। ভাতার পরিমাণ নির্ধারিত রয়েছে স্বাস্থ্যকর্মী ভেদে ৬৫০ থেকে ২ হাজার টাকা প্রতিদিন।

নির্ধারিত আবাসন সুবিধা গ্রহণ না করলে ঢাকা মহানগরে কোভিড-১৯ রোগীদের সেবার দায়িত্বে নিয়োজিত ১৫ দিনের জন্য প্রতিদিন একজন চিকিৎসক পাবেন ২ হাজার টাকা। নার্স ১ হাজার ২০০ এবং অন্য স্বাস্থ্যকর্মী পাবেন ৮০০ টাকা। ঢাকা মহানগর ব্যতীত অন্য এলাকার জন্য তা হবে যথাক্রমে ১ হাজার ৮০০, ১ হাজার ও ৬৫০ টাকা। এই হিসাবে ঢাকা মহানগরের একজন চিকিৎসক ১৫ দিনের জন্য ভাতা পাবেন ৩০ হাজার টাকা। গত বৃহস্পতিবার অর্থ বিভাগ এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করেছে। কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসাসেবার সঙ্গে

সম্পৃক্ত সরকারি চিকিৎসক, নার্স ও অন্য স্বাস্থ্যকর্মীর দায়িত্বপালনকাল নির্ধারণ ও দায়িত্বকালীন পৃথক অবস্থানের ব্যবস্থা সংক্রান্ত একটি পরিপত্র গত জুলাইয়ে জারি করে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ। পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়, ‘দায়িত্বপ্রাপ্তরা সাধারণভাবে একাধারে ১৫ দিনের বেশি দায়িত্ব পালন করবেন না এবং প্রতি মাসে ১৫ দিন দায়িত্ব পালন শেষে পরবর্তী ১৫ দিন তারা সঙ্গনিরোধ (কোয়ারেন্টিন) ছুটিতে থাকবেন। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা ১৫ দিন কর্মকালীন পৃথক অবস্থানের জন্য বিশেষ ভাতা অথবা খাবারসহ আবাসনের সুবিধা পাবেন।’ তাদের থাকার জন্য ছয়টি সরকারি স্থাপনা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

জানা গেছে, কোভিড রোগীদের সেবায় এ পর্যন্ত ২৩ হাজার ৩০০ জন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োজিত রয়েছেন। এর মধ্যে চিকিৎসক ৫ হাজার ৭৩০, নার্স ১০ হাজার এবং অন্য স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যা প্রায় ৮ হাজার। হোটেলে থাকা বাবদ তাদের পেছনে এপ্রিল-জুনে ব্যয় হয়েছে ১০০ কোটি টাকারও বেশি।

advertisement
Evaly
advertisement