advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

উইঘুর নির্যাতনের ভয়াল বর্ণনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
৫ ডিসেম্বর ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:৫৪
advertisement

সাইরাগুল সাউতবে চীনের সিনজিয়াংয়ের ‘পুনঃশিক্ষা ক্যাম্প’ থেকে মুক্তি পেয়েছেন দুই বছরেরও বেশি সময় আগে। তিনি দুই সন্তানের মা। কিন্তু তাকে এখনো তাড়িয়ে ফেরে তাদের ওপর চালানো ভয়াবহতা, অমানবিকতা আর সহিংসতা। এসবই তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন আটক অবস্থায়। সাইরাগুল সাউতবে বর্তমানে বসবাস করছেন সুইডেনে। তিনি একজন ডাক্তার এবং শিক্ষাবিদ। সম্প্রতি তিনি একটি বই প্রকাশ করেছেন। তাতে তিনি ওই বন্দিশিবিরের ভয়াবহতা, যা প্রত্যক্ষ করেছেন তা তুলে ধরেছেন।

এর মধ্যে রয়েছে প্রহার, যৌন নির্যাতন, জোর করে বন্ধ্যাকর। সম্প্রতি তিনি এসব নিয়ে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন আলজাজিরাকে। সিনজিয়াংয়ে মুসলিম সংখ্যালঘু ও অন্যান্য উইঘুরদের ওপর কিভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে তার বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এসব সংখ্যালঘুকে জোরপূর্বক শূকরের মাংস খাওয়ানো হচ্ছে। এমনকি উইঘুরে শূকরের ফার্ম বিস্তৃত করেছে চীন।

সাইরাগুল সাউতবে বলেন, প্রতি শুক্রবার আমাদের শূকরের মাংস খেতে বাধ্য করা হতো। তারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে এ দিনটিকে বাছাই করে নিত। কারণ এ দিনটি সপ্তাহের অন্য দিনের চেয়ে বেশি পবিত্র মুসলিমদের কাছে। যদি কেউ এই মাংস খেতে অস্বীকৃতি জানাত তাহলে তার ওপর নেমে আসত নির্দয় নিষ্ঠুর শাস্তি। তিনি দাবি করেন, এসব নীতি গ্রহণ করা হয়েছে উইঘুর মুসলিম বন্দিদের অবমাননা করতে এবং তাদের হীন করার উদ্দেশ্যে। সাইরাগুল সাউতবে বলেন, যখন শূকরের মাংস খেতে বাধ্য করা হতো তখনকার অনুভূতি প্রকাশ করার কোনো ভাষা নেই।

আমার মনে হতো আমিÑ আমি নই। আমি অন্য কেউ। আমার চারপাশে যারা থাকতেন বন্দি আমার মতো তাদেরও চোখমুখ কালো হয়ে যেত। এমন পরিস্থিতি মেনে নেওয়া ভীষণ কঠিন। আলজাজিরা।

advertisement
Evaly
advertisement