advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

উজাড় হচ্ছে সামাজিক বনায়নের গাছ
পরিবেশের ক্ষতি বন্ধ হোক

১২ জানুয়ারি ২০২১ ০০:০০
আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০২১ ০০:২৬
advertisement

গোমস্তাপুরে বাঁধ সংস্কারের নামে নির্বিচারে নিধন করা হয়েছে সরকারি গাছ। মূলত ২০২০-২১ অর্থবছরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের টেকসই ক্ষুদ্রাকার পানিসম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় গোমস্তাপুর উপজেলার আলীনগর-বাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের পাবদামারী চুড়ইল বিলের প্রায় সাড়ে আট কিলোমিটার বাঁধ সংস্কারের জন্য ৭৯ লাখ ২৭ হাজার ৫৮৮ টাকা বাঁধ বাস্তবায়ন কমিটির নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়, যা ১৬টি গ্রুপে ভাগ করে সাড়ে তিন মাসে ৩০ শতাংশ জনবল ও ৭০ শতাংশ মেশিন দ্বারা সংস্কার করার কথা।

অভিযোগ উঠেছে, কাজের শর্তানুযায়ী আড়াই মিটার দূর থেকে মাটি উত্তোলনের কথা থাকলেও তা না করে এক মাসের মধ্যেই এক্সকাভেটর মেশিন দ্বারা বাঁধের পাশের জমি থেকে বড় বড় গর্ত করে মাটি উত্তোলন করে বাঁধের ওপর ফেলা হয়েছে। ৩০ শতাংশ জনবলকে কাজে না লাগিয়ে রাতারাতি মেশিন দ্বারা কাজ সম্পন্ন করে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে বাঁধ সংস্কার কমিটি। মেশিন দ্বারা জমি থেকে মাটি উত্তোলনে গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় জমিগুলো চাষাবাদের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া সাধারণ মানুষের দাবি, অন্তত কয়েকশ গাছ অবৈধভাবে কাটা হয়েছে বাঁধ সংস্কারের নামে। বিষয়টি জানার পর বন বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গেলে দেওয়া হয় তাদের প্রাণনাশের হুমকি। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে বেশ কিছু কাটা গাছ উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রামবাসীকে ভয় দেখিয়ে, হত্যার হুমকি দিয়ে যে বা যারা সামাজিক বনায়নের গাছ কাটছে, তারা কোন ক্ষমতাবলে এমন কাজ করতে পারছে তাও ক্ষতিয়ে দেখতে হবে। অবিলম্বে এ ধরনের পরিবেশবিধ্বংসী কাজ বন্ধ করা উচিত। এবং চুড়াইল বিল বাঁধ কমিটিকে জবাবদিহি করতে বাধ্য করবে সরকার- এটিই প্রত্যাশা।

advertisement
Evaly
advertisement