advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

সিনহার দুর্নীতি মামলা
টাকার বিষয়ে কিছুই জানা নেই ভাই-ভাতিজার

১৪ জানুয়ারি ২০২১ ০১:১৯
আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২১ ০১:১৯
advertisement

ফারমার্স ব্যাংকের (বর্তমানে পদ্মা) ৪ কোটি টাকা ঋণদুর্নীতির মামলায় সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার ফুফাতো ভাইয়ের ছেলে শঙ্খজিৎ সিনহার জেরা শেষ হয়েছে। ঢাকার চার নম্বর বিশেষ জজ শেখ নাজমুল আলমের আদালতে গতকাল বুধবার আসামিপক্ষের আইনজীবীরা এ সাক্ষীকে জেরা করেন। এর পর বিচারক আগামী ২ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ঠিক করেন। এসকে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে বিচার চলা এ মামলায় এর আগে গত ২৮ ডিসেম্বর সিনহার বড় ভাই নরেন্দ্র কুমার সিনহা এবং ভাতিজা শঙ্খজিৎ সিনহা সাক্ষ্য দেন।
ভাই ও ভাতিজার সাক্ষ্য সম্পর্কে দুদকের প্রসিকিউটর মীর আহমেদ আলী সালাম বলেন, ‘ফারমার্স ব্যাংকে শাহজাহান ও নিরঞ্জন চন্দ্র সাহার নামে মঞ্জুরকৃত ঋণের ৪ কোটি টাকা এসকে সিনহা প্রথমে সুপ্রিমকোর্ট সোনালী ব্যাংক শাখার হিসাবে জমা করেন। সেখান থেকে ১ কোটি ৪৯ লাখ ৬ হাজার এবং ৭৮ লাখ ৫৩ হাজার টাকা দুটি চেকের মাধ্যমে উত্তরাস্থ শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকে থাকা সিনহার বড় ভাই নরেন্দ্র কুমার সিনহা এবং ফুফাতো ভাইয়ের
ছেলে শঙ্খজিৎ সিনহার যৌথ হিসাবে হস্তান্তর করেন। ওই যৌথ হিসাব সিনহা সাহেবই করেছিলেন। তাতে টাকা হস্তান্তর ও উত্তোলন সম্পর্কে এ সাক্ষীদের কিছুই জানা ছিল না মর্মে সাক্ষ্যে উল্লেখ করেন। ওইদিন আদালত জবানবন্দির পর আইনজীবীরা নরেন্দ্র কুমার সিনহাকে জেরা করেন। আর শঙ্খজিৎ সিনহার জেরা বাকি ছিল, যা বুধবার আইনজীবীরা করেছেন। এ নিয়ে মামলাটিতে চার্জশিটভুক্ত ১৮ সাক্ষীর মধ্যে ১৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হলো।’
মামলাটিতে গতকাল সাক্ষ্যগ্রহণকালে জামিনে থাকা আসামি ফারমার্স ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম শামীম ও সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও সাবেক ক্রেডিট-প্রধান গাজী সালাহউদ্দিন এবং ব্যাংকটির ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বপন কুমার রায়, ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. লুৎফুল হক, টাঙ্গাইলের বাসিন্দা মো. শাহজাহান, নিরঞ্জন চন্দ্র সাহা আদালতে হাজির ছিলেন। আর ফারমার্স ব্যাংকের উদ্যোক্তা পরিচালক ও অডিট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুল হক চিশতীকে (বাবুল চিশতী) কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়। আর এসকে সিনহাসহ চার আসামি পলাতক রয়েছেন। অপর তিনজন হলেনÑ ফারমার্স ব্যাংকের ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট শাফিউদ্দিন আসকারী, টাঙ্গাইলের বাসিন্দা সান্ত্রী রায় ওরফে সিমি এবং তার স্বামী রণজিৎ চন্দ্র সাহা।
একই আদালত গত ১৩ আগস্ট এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করে করেন। গত বছরের ১০ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা দুদক পরিচালক বেনজীর আহমেদ। এর আগে একই বছরের ১০ জুলাই দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

advertisement
Evaly
advertisement