advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

নুসরাত হত্যা : আ.লীগ অফিসে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তের ছবি টাঙ্গিয়ে মুক্তির জন্য দোয়া

সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি
১৪ জানুয়ারি ২০২১ ১৩:২৯ | আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২১ ২১:০৯
আওয়ামী লীগ অফিসে নুসরাত হত্যার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তের ছবি টাঙ্গিয়ে মুক্তির জন্য দোয়া। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

ফেনীর সোনাগাজীতে আলোচিত মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামির কারামুক্তি এবং সুস্থতা কামনা করে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। ওই দুই আসামি হলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন ও সাবেক পৌর কাউন্সিলর পৌর আওয়ামী লীগ নেতা মাকসুদ আলম। এ সময় কার্যালয়ে রুহুল আমিনের একটি ছবিও টাঙ্গানো হয়।

গতকাল বুধবার বিকেলে পৌর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ব্যানারে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ওই আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব বাবুল।

এ সময় আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন- সোনাগাজী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সাখাওয়াতুল হক বিটু, মতিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রবিউজ্জামান বাবু, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম ভুট্টো, মঙ্গলকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন বাদল, জেলা পরিষদের সদস্য নাছির উদ্দিন আরিফ ভুঁইয়া, চরচান্দিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহিম মানিক, বগাদানা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলা উদ্দিন বাবুল, আমিরাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরু মেম্বার, ইউপি সদস্য গেধু মিয়া ভুঁইয়া, দীন মোহাম্মদ, মতিগঞ্জ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোহাম্মদ হোসেন টিপু ও পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেনসহ যুবলীগ, ছাত্রলীগের উল্লেখযোগ্য নেতাকর্মীরা।

জানতে চাইলে সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মফিজুল জানান, এই কর্মসূচি সম্পর্কে তিনি অবগত নন। বিষয়টি নিয়ে অবগত নন জানিয়ে কোন মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকনও।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে ২৪ অক্টোবর নুসরাত জাহান রাফিকে নির্মমভাবে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা, আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমীন ও কাউন্সিলর মকসুদ আলমসহ ১৬ জনের ফাঁসির আদেশ দেন ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মামুনুর রশিদ। বর্তমানে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলাটি হাইকোর্টের আপিল বিভাগে ডেথ রেফারেন্স শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে।

advertisement
Evaly
advertisement