advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

উলিপুর পৌরসভা নির্বাচন
ভোট কেনার অভিযোগে বিএনপি নেতা আটক

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৯:৫৪ | আপডেট: ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২২:০৬
আটক হওয়া বিএনপি নেতা আব্দুর রশিদ
advertisement

কুড়িগ্রামের উলিপুর পৌর নির্বাচনে আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে ভোট কেনার অভিযোগে বিএনপি নেতা আব্দুর রশিদকে (৬৪) আটক করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাতে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী হায়দার আলী মিঞার নিজ গ্রাম মুন্সিপাড়া থেকে ওই নেতাকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর লোকজন আটক করে থানা পুলিশে দেন। এ ঘটনায় গতকাল রাতেই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মামুন সরকার মিঠু বিএনপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেন। 

অভিযোগ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে বিএনপি প্রার্থীর মুন্সিপাড়াস্থ এলাকায় উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুর রশিদসহ কয়েকজন নেতাকর্মী রাস্তায় থাকাকালীন প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের আটক করেন। এ সময় অন্যরা পালিয়ে গেলেও আব্দুর রশিদকে ভোট কেনার অভিযোগে পুলিশে সোর্পদ করেন। প্রতিপক্ষের লোকজনের হাতে আটকের সময় ওই নেতা অসুস্থ হয়ে পড়লে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

এ ঘটনায় গতকাল রাতেই আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মামুন সরকার মিঠু রিটানিং কর্মকর্তার কাছে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে বিএনপি প্রার্থীসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে ব্যবস্থা গ্রহণসহ সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ বজায় রাখার আবেদন করেন।

এ প্রসঙ্গে বিএনপির মেয়র প্রার্থী হায়দার আলী মিঞা বলেন, ‘আব্দুর রশিদ মুন্সিপাড়াস্থ তার বেয়াই হাফিজুর রহমানের বাড়ি থেকে বের হয়ে নিজ বাড়ি যাওয়ার পথে নৌকা মার্কার কর্মীরা তাকে আটক করে বেধড়ক মারধর করলে তিনি রাস্তায় পড়ে জ্ঞান হারান। এ সময় তার দেহে ধানের শীষের স্লিপ ও টাকা-পয়সা গুঁজে দিয়ে তাকে পুলিশে দেওয়া হয়। ঘটনাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও সাজানো নাটক।’

উলিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মাঈদুল ইসলাম জানান, আব্দুর রশিদ নামে এক ব্যক্তিকে শারীরিক নির্যাতনে অসুস্থ হওয়ার কারণে গতকাল মঙ্গলবার রাতে ভর্তি করা হয়েছিল। তিনি সুস্থ হওয়ায় আজ বুধবার দুপুরে তাকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম রাকিব অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘বিষয়টির আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উলিপুর থানার ওসিকে বলা হয়েছে।’

উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ কবীর জানান, আটক ওই ব্যক্তিকে ১৫১ ধারায় আজ বুধবার বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

advertisement
Evaly
advertisement