advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

রোজার আগেই পাপুলের আসনে ভোটের ভাবনা

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০১:০২
আপডেট: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০১:০২
advertisement

কুয়েতের আদালতে দ-িত হওয়ায় শূন্য ঘোষিত মোহাম্মদ কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সংসদীয় আসনে (লক্ষ্মীপুর-২) রোজার আগেই ভোট করার আভাস দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম। গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, ‘রোজার সময় সাধারণত নির্বাচন হয় না। লক্ষ্মীপুর-২ আসনের উপনির্বাচনও ওই সময়ে হওয়ার কথা নয়। রোজাটা অবশ্যই আমাদের বিবেচনায় আছে। ঈদের পর নির্বাচন করলে ৯০ দিন পার হয়ে যাচ্ছে কিনা, সেই হিসাবটাও করে দেখার বিষয় আছে। সে ক্ষেত্রে রোজার আগেই নির্বাচন করার সম্ভাবনা থাকতে পারে। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কমিশন নেবে।’ খবর বিডিনিউজ।
সাধারণ শ্রমিক হিসেবে কুয়েত গিয়ে বিশাল সাম্রাজ্য গড়া পাপুল ২০১৮ সালে লক্ষ্মীপুর-২ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মিত্র জাতীয় পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দিয়েছিল। কিন্তু জাতীয় পার্টির প্রার্থী শেষ মুহূর্তে ভোট থেকে সরে দাঁড়ালে ‘বিএনপি ঠেকানোর’ কথা বলে স্থানীয় আওয়ামী

লীগ পাপুলের পক্ষে কাজ করে বলে আলোচনা রয়েছে। পাপুল নিজে এমপি হওয়ার পর স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যদের কোটায় পাওয়া সংরক্ষিত একটি আসনে তার স্ত্রী সেলিনা ইসলামকেও এমপি করে আনেন।
এদিকে অর্থ ও মানবপাচার এবং ঘুষ দেওয়ার অভিযোগে গত বছর জুনে কুয়েতে গ্রেপ্তার হন পাপুল। ব্যবসার সূত্রে সেখানে তার বসবাসের অনুমতি ছিল। ওই মামলার বিচার শেষে গত ২৮ জানুয়ারি তাকে চার বছরের সশ্রম কারাদ- দেন দেশটির একটি আদালত। সেদিন থেকেই তার সংসদ সদস্যপদ শূন্য ঘোষণা করে গত সোমবার গেজেট জারি করেছে সংসদ সচিবালয়। ফলে সেদিন থেকে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে আসনটিতে উপনির্বাচন দেওয়ার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে এপ্রিলের মধ্যে উপনির্বাচন করতে হবে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি)।
এ প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম বলেন, ‘কমিশন বসে সিদ্ধান্ত নেব, তফসিলটা কবে দেওয়া যায়। ৯০ দিনের সময়ের বাধ্যবাধকতায় যদি রোজার আগে করতে হয়, তা হলে (তফসিল) হতে পারে।’ এ বছর রোজা শুরু হচ্ছে এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে। তার আগে স্থানীয় সরকারের বেশ কিছু নির্বাচন রয়েছে। এর মধ্যে ১১ এপ্রিল ৯ পৌরসভা ও ৩২৩ ইউপিতে ভোট রয়েছে। তার আগে ২৮ ফেব্রুয়ারি রয়েছে পৌরসভার ষষ্ঠ ধাপের ভোট।
এসব নির্বাচনে যাতে সহিংসতা না হয়, সে বিষয়ে নির্বাচন কমিশন পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানান কবিতা খানম। তিনি বলেন, ‘আমরা মিটিংয়ের মাধ্যমে বিভিন্ন ডিরেকশন দিয়েছি। রিটার্নিং অফিসার, ডিসি এবং ওসির সঙ্গে কথা বলছি। সতর্ক করেছি যাতে তারা হার্ড লাইনে থাকেন। এসব ব্যাপারে আমরা কঠোর অবস্থানে থাকার কথা বলেছি। প্রার্থীদের নিয়ে ডিসি-এসপিদের মিটিং করার কথা বলেছি, যাতে ভবিষ্যতে কোনো সহিংস ঘটনা না ঘটে।’

advertisement
Evaly
advertisement