advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

এসিড সারভাইভারদের জন্য ৬ লাখ টাকা তুলে দিল ‘পাওয়ার অব শি’

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০০:৪৫ | আপডেট: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০০:৪৫
advertisement

এসিড সারভাইভার ফাউন্ডেশনের বন্ধ হয়ে যাওয়া হাসপাতাল পুনরায় চালু করার জন্য ‘পাশে আছি’ স্লোগানে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করে ‘পাওয়ার অব শি’ প্ল্যাটফর্ম। রাজধানীর বেইলি রোডের আইভী রহমান মিলনায়তনে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত হয় অনুষ্ঠানটি।

অনুষ্ঠানে এসিড সারভাইভার ফাউন্ডেশনের বন্ধ হয়ে যাওয়া হাসপাতালটি পুণরায় চালুর জন্য জি এম এস গার্মেন্টেসের সহযোগিতায় ও পাওয়ার অব শি’র উদ্যোগে ৬ লক্ষ টাকা আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হয়। পাওয়ার অব শি’র প্রজেক্ট চিফ সাবিনা স্যাবির মাধ্যমে এসিড সারভাইভার ফাউন্ডেশনের হাতে এ অর্থ তুলে দেন গার্মেন্টসটির প্রতিনিধি উম্মে ফ্লোরা।

আজ শনিবার বিকেলে অনুষ্ঠানটিতে উপস্থিত ছিলেন এসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশনের কো-অর্ডিনেটর এবং ট্রাস্টি অ্যাডভোকেট সালমা আলী, বেসরকারি চ্যানেলে জিটিভির বার্তা প্রধান ইশতিয়াক রেজা, ফ্যাশন ডিজাইনার লিপি খন্দকার, উপসচিব গাউসুল আজম, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের নির্বাহী প্রযোজক পিয়া রহমান, হেড অব সিটি আলো মরিয়ম জায়েদ জুহি, রন্ধন শিল্পী আঞ্জুমান সেতু, উদ্যোক্তা সংগীতা খান, ট্রাভেল আর্টস’র সিইও তামান্না রব্বানী, সোনিয়া হাবিব, উদ্যোক্তা সালমান রহমান আঁখি, ফরহানা সেকান্দার, শিশু বিকাশ বিশেষজ্ঞ আঞ্জুমান পারভীন অভি, আইভী মামুন, জি এম এস গার্মেন্টসের প্রতিনিধি উম্মে ফ্লোরা, গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ইভিপি মাহবুব আরা, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অডিট এবং অ্যাকাউন্ট অফিসার রোজি সুলতানাসহ আরও অনেকে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, দেশের দুস্থ নারীদের জন্য এই সমাজের অনেক কিছু করার আছে। বিশেষ করে যারা এসিডে আক্রান্ত তাদের পাশে দাঁড়াতে সবাইকে ঐকবদ্ধ হতে হবে। নারীকে নিজের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করার কথাও জানান তারা।

বক্তারা আরও বলেন, নারী হোক বা পুরুষ, নিজেকে ভালোবাসতে হবে। তারা বলেন, নিজেকে ভালো না বাসলে কোনো কিছুই সঠিক নিয়মে করা যাবে না। সংসার, সন্তান বা নিজের কাজ, সবকিছুই মূলত ভালোবাসার উপর ভিত্তি করে হয়। নারীদের এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে। নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে নিজের প্রতি ভালোবাসা তৈরি করতে হবে বলে মত দেন তারা।

অনুষ্ঠানে এসিড সন্ত্রাসের শিকার তাহমিনা বলেন, ‘প্রতি বছরই আমাদের দেশে ২০ থেকে ২২ জন এসিডে আক্রান্ত হচ্ছে। আমরা চাই এমন দিন আসুক যেদিন থেকে দেশে কোনো এসিড সহিংসতা ঘটবে না। কোনো তাহমিনাকে এভাবে কথা বলতে হবে না। আমরা সে লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। পাওয়ার অব শি এমন একটি প্ল্যাটফর্ম, তারা যেভাবে আমাদের জন্য এগিয়ে এসেছে। আগামীতে আমরা আরও বড় লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাবো।’

পাওয়ার অব শি’র প্রজেক্ট চিফ সাবিনা স্যাবি বলেন, ‘পাশে আছি’ স্লোগানে পাওয়ার অব শি এটা বোঝাতে চাইছে- আমরা নারীবাদী নই, আমরা মানবতাবাদী। আমরা সবসময় পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। আমরা সব সময় পাশে থাকার চেষ্টা করে যাবো।

এসিড সারভাইভার ফাউন্ডেশনের বন্ধ হওয়া হাসপাতালটির জন্য আর্থিক সহযোগিতায় পাওয়ার অব শি’র সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন সাবিনা স্যাবি।

advertisement