advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

চাকরির আশ্বাসে গণধর্ষণ
বিআইডব্লিউটিএ কর্মচারীসহ দুজন রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩ মার্চ ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ২ মার্চ ২০২১ ২৩:০৮
advertisement

রাজধানীর সবুজবাগে ৩৫ বছর বয়সী গার্মেন্টকর্মীকে ব্যাংকে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগে দুজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তারা হলেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) কর্মচারী সনজিব কুমার দাস ও তার সহযোগী আনিকা। গত সোমবার দিবাগত রাতে মাদারটেক এলাকার একটি বাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে সবুজবাগ থানা পুলিশ।

গতকাল মঙ্গলবার গ্রেপ্তার দুজনকে ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত। দুপুরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আসামিদের আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সত্যব্রত শিকদার

এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ধর্ষণের শিকার ওই নারী মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, পাঁচ বছর আগে স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় তার। এর পর একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। গত ১০ ফেব্রুয়ারি পূর্বপরিচিত সনজিবের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে কুশল বিনিময়ের সময় তিনি তার সন্ধানে ব্যাংকে ভালো চাকরি থাকার কথা জানান। চাকরি দেওয়ার কথা বলে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ মাদারটেকের একটি বাসায় কেরানীগঞ্জের বাসিন্দা ভুক্তভোগী নারীকে ডেকে আনেন সনজিব দাস। এ সময় সনজিব দাসের সঙ্গে রাসেল, জামাল, আজিজুর রহমান ও আনিকা নামে ওই নারী বাসায় ছিলেন। এক পর্যায়ে সনজিবসহ উপস্থিত পুরুষ সদস্যরা ওই গার্মেন্টকর্মীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। আনিকা তাদের এ কাজে সহায়তা করেন। একপর্যায়ে ভয় দেখিয়ে বিবস্ত্র করে মোবাইলে নারীর নগ্ন ছবি উঠায়। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে সনজিব তাকে ঘটনা জানাজানি হলে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে গুলিস্তান নিয়ে যায়। সেখান থেকে কেরানীগঞ্জ ভাইয়ের বাসায় যান এবং ঘটনার বিস্তারিত ভাবিকে জানান। নারী শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে তার ভাবি ১৬ ফেব্রুয়ারি বিকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করেন। ২০ ফেব্রুয়ারি চিকিৎসা শেষে বাসায় যান। এর পর আসামিদের হুমকি-ধমকি মাথায় নিয়ে গত সোমবার সবুজবাগ থানায় সনজিবকে ১ নম্বর আসামি করে মোট পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ধর্ষণের শিকার ওই নারী।

advertisement