advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

নিজেকে জাতিসংঘে মিয়ানমারের বৈধ দূত ঘোষণা তুনের

অনলাইন ডেস্ক
৩ মার্চ ২০২১ ১১:২০ | আপডেট: ৩ মার্চ ২০২১ ১১:৪২
জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত কিয়াও মোয়ে তুন। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

মিয়ানমারের সেনাঅভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে জাতিসংঘে বক্তব্য দেওয়ায় জান্তা সরকার দ্বারা বরখাস্ত কিয়াও মোয়ে তুন নিজেকে জাতিসংঘে মিয়ানমারের বৈধ দূত বলে ঘোষণা করেছেন। বিষয়টি নিয়ে তিনি জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের প্রেসিডেন্ট ভলকান বজকির এবং যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেনের কাছে চিঠি লিখেছেন বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

সোমবার বজকির ও ব্লিংকেনকে লেখা চিঠিতে কিয়াও বলেন, ‘মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে অবৈধ অভ্যুত্থানের হোতাদের আমার দেশের প্রেসিডেন্টের নিয়োগ দেওয়া বৈধ কর্তৃপক্ষকে প্রত্যাহার করার কোনো অধিকার নেই। তাই আমি আপনাদের নিশ্চিত করে বলতে চাই, আমিই এখনো জাতিসংঘে মিয়ানমারের স্থায়ী প্রতিনিধি আছি। মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সু চি গত বছর তাকে জাতিসংঘে দেশটির রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন এবং তারা দুইজনই এখনো বৈধভাবে নির্বাচিত হয়ে নিজ নিজ পদে বহাল আছেন।’

এর আগে গত শুক্রবার জাতিসংঘে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত কিয়াও তার দেশে সামরিক অভ্যুত্থানকারীদের থামাতে প্রয়োজনীয় যেকোনো ব্যবস্থা নিতে জাতিসংঘের প্রতি ‍অনুরোধ জানান। নিজের বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারের কাছে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার আগ পর্যন্ত কারও সেনাবাহিনীকে সহযোগিতা করা উচিত নয়।’

কিয়াও’র এই প্রতিক্রিয়ার পরদিনই মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচার করা এক বার্তায় তাকে বরখাস্তের ঘোষণা দেওয়া হয়। তাকে বিশ্বাসঘাতক উল্লেখ করে ঘোষণায় বলা হয়, ‘কিয়াও মোয়ে তুন দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন এবং সরকার স্বীকৃত নয় এমন একটি সংগঠনের পক্ষে বলেছেন যারা দেশকে প্রতিনিধিত্ব করে না। তিনি রাষ্ট্রদূতের ক্ষমতা ও দায়িত্বের অপব্যবহার করেছেন।’

এ বিষয়ে জানতে রয়টার্সের থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও সাড়া মেলেনি।

প্রসঙ্গত, গত ১ ফেব্রুয়ারি ভোরে মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। এদিন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি এবং ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের আটক করে সেনাবাহিনী।

advertisement