advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

ছিনতাই করতে গিয়ে আটক তিন পুলিশ
দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে

৪ মার্চ ২০২১ ০০:০০
আপডেট: ৩ মার্চ ২০২১ ২৩:২২
advertisement

সাদা পোশাকের তিন পুলিশ, তারা যে থানায় কর্মরত (কক্সবাজার সদর মডেল থানার আওতাধীন শহর পুলিশ ফাঁড়ি), ওই থানা এলাকারই একটি বাড়িতে প্রবেশ করে গৃহিণীকে পিস্তল ঠেকিয়ে তিন লাখ টাকা ছিনতাই শেষে বেরিয়ে যাচ্ছিল। ওই সময় গৃহিণীর চিৎকারে এগিয়ে আসেন প্রতিবেশীরা। দুজন পালিয়েও যায়। কিন্তু একজন আটক হয়। পুলিশ ডেকে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয় আটক ওই ছিনতাইবাজ পুলিশকে। পরে তাকে জেরা করে পালিয়ে যাওয়া দুজনেরও সন্ধান বের করে গ্রেপ্তার করা হয়। আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাদের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অপরাধ দমনের দায়িত্ব যাদের হাতে অর্পিত, তাদের মধ্যেই যদি অপরাধপ্রবণতার চিত্র পাওয়া যায়- তা হলে সেটি বড় উদ্বেগের বিষয়। প্রায় সব সংস্থাতেই অসৎ লোক আছে। তবে পুলিশ একটি অস্ত্রধারী সুশৃঙ্খল বাহিনী। জনশৃঙ্খলা বিঘিœত হলে তা মোকাবিলায় পুলিশই অগ্রভাগে থাকে। কারও জানমাল বিপন্ন হলে ছুটে যেতে হয় তাদের কাছে। এই পুলিশকে সবাই বন্ধু আর সজ্জন হিসেবে চায়। তাই প্রত্যাশা সঙ্গত যে, তারা দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালনকে মূলনীতি হিসেবে অনুসরণ করবেন।

পুলিশ বিভাগের উচিত এসব অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনের যথাযথ প্রয়োগের পথ সুগম করা। তাদের কঠোর শাস্তির মধ্য দিয়ে পুলিশ বিভাগের আত্মশুদ্ধির অভিযান চালানো জরুরি। রাষ্ট্রের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুলিশ বিভাগের মানমর্যাদা ও এর প্রতি জনগণের আস্থা ধরে রাখার স্বার্থে এটি করতেই হবে।

advertisement