advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

উপাচার্য ও শিক্ষকদের বিরুদ্ধে তদন্ত সুখকর নয় : ইউজিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩ মার্চ ২০২১ ২৩:২৭ | আপডেট: ৩ মার্চ ২০২১ ২৩:২৭
ইউজিসি ভবন। পুরোনো ছবি
advertisement

উপাচার্যসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে তদন্ত সুখকর নয় বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্যরা। কয়েকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সংঘটিত আর্থিক, প্রশাসনিক ও একাডেমিক দুর্নীতির সমালোচনা করে তারা এ কথা বলেন।

আজ বুধবার বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) ও এপিএএমএস (সফটওয়্যার) বিষয়ক দুদিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ইউজিসি সদস্যরা বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতির ব্যাপারে সমালোচনা করেন। তারা বলেছেন, উপাচার্যসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে তদন্ত সুখকর নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখার স্বার্থে এগুলো পরিহার করে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে।

কর্মশালায় ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ প্রধান অতিথি ছিলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগম, অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর ও অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ।

ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহেরের সভাপতিত্বে এতে স্বাগত বক্তব্য দেন সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান। অনুষ্ঠানে ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেনসহ বিভাগীয় প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘সুশাসন, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা এই শব্দগুলো এখন জাতীয় স্লোগানে পরিণত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ও ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে এগুলো নিশ্চিত করতে হবে।’

অধ্যাপক আলমগীর বলেন, ‘কিছু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্থিক, প্রশাসনিক ও একাডেমিক অস্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখার স্বার্থে এগুলো পরিহার করে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে।’ তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তাদেরকে উপাচার্যের বা কর্তৃপক্ষের লিখিত নির্দেশনা মোতাবেক দায়িত্ব পালনের অনুরোধ জানান।

অধ্যাপক বিশ্বজিৎ চন্দ জানান, উপাচার্যসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে তদন্ত সুখকর নয়। কারণ শিক্ষকরা সমাজের সম্মানিত ব্যক্তি। ভবিষ্যতে সম্মানিত উপাচার্যদের বিরুদ্ধে যেন তদন্ত করতে না হয় সেদিকে দৃষ্টি রেখে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান তিনি।

advertisement