advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

আগের ঘুমের সুফল মিলবে পরে

অনলাইন ডেস্ক
১৯ মার্চ ২০২১ ১২:৪৮ | আপডেট: ১৯ মার্চ ২০২১ ১২:৪৮
প্রতীকী ছব
advertisement

ঘুম জীবনের একান্ত জরুরি কাজ। কম ঘুম স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। তাই ঘুমের সমস্যা জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে সামনে আসছে। ঘুমের ব্যাপারে ব্যক্তির মনোযোগী হওয়া একান্ত আবশ্যক।

গবেষণায় দেখা গেছে, বিশ্বের প্রায় ১০০ মিলিয়ন মানুষের ঠিকমত ঘুম হয় না। মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ঘুমের গুরুত্ব অনেক। এ জন্য পৃথিবীজুড়ে মার্চ মাসের তৃতীয় শুক্রবার বিশ্ব ঘুম দিবস পালন করা হয়। ২০০৮ সাল থেকে ঘুম দিবস ঘটা করে পালিত হয়ে আসছে ‘ওয়ার্ল্ড অ্যাসোসিয়েশন অব স্লিপ মেডিসিন’ এর ওয়ার্ল্ড স্লিপ ডে কমিটি। এ কমিটির মূল উদ্দেশ্য, ঘুমের অভাবে শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির বিষয়ে মানুষকে জানানো।

সপ্তাহের প্রতি রাতেই আট ঘণ্টা করে ঘুমানোর পরামর্শ দেন গবেষকরা। কারণ ছুটির দিন রাতে ঘুম কম হয়, এতে পরদিনের কাজে পরিশ্রান্ত মনে হয়, শরীর ও মন কাজের উপযোগী থাকে না। ছুটির দিন শরীরে ভিটামিন ‘ডি’ পাওয়ার জন্য ছয় থেকে আট মিনিট রোদে থাকার পরামর্শও দিয়েছেন গবেষকরা। কারণ সূর্যের আলো দেহঘড়ি ঠিক রাখে।

চিকিৎসকরা বলেন, ভালো ঘুমের সঙ্গে স্মৃতিশক্তির বেশ নিবিড় যোগসূত্র রয়েছে। সাধারণত বৃদ্ধ বয়সে স্বাভাবিকভাবেই স্মৃতিশক্তি লোপ পায়, মানসিক দুর্বলতাও তৈরি হয়। তাই শেষ বয়সে অনেকেরই অনিদ্রা সমস্যা দেখা দেয়। মধ্যবয়সে একজন মানুষ নিয়ম মেনে ঘুমালে তার সুফল বৃদ্ধ বয়সেও পেতে পারেন।

advertisement