advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

‘শিশু বক্তা’র ফোনে পর্নো ভিডিও, গোপনে বিয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক
৭ এপ্রিল ২০২১ ২২:৪০ | আপডেট: ৮ এপ্রিল ২০২১ ১৩:২০
রফিকুল ইসলাম মাদানী
advertisement

‘শিশুবক্তা‘ হিসেবে পরিচিত রফিকুল ইসলাম মাদানীকে আজ বুধবার গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তাকে গ্রেপ্তারের পর বেরিয়ে আসছে তার নানা তথ্য। র‌্যাব জানিয়েছে, রফিকুল ইসলামের ফোনে মিলেছে বেশকিছু পর্নো ভিডিও। এ ছাড়া তার বিয়ে নিয়েও অস্পষ্টতা রয়েছে।

রফিকুল ইসলাম মাদানীকে গ্রেপ্তারের পর বুধবার বিকেলে তার বিরুদ্ধে গাজীপুরের গাছা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়।  রাষ্ট্রবিরোধী ও উসকানিমূলক কথাবার্তা এবং রাষ্ট্রের শীর্ষ ব্যক্তিদের নিয়ে কটাক্ষ করার অভিযোগে গ্রেপ্তার হন মাওলানা রফিকুল ইসলাম।

‌র‌্যাব কর্মকর্তারা বলছেন, আটকের পর রফিকুল ইসলাম মাদানীর মোবাইল ফোন চেক করে একাধিক পর্নো ভিডিও পাওয়া যায়। এ ছাড়া আসমা নামের এক মেয়েকে দুই বছর আগে গোপনে বিয়েও করেছিলেন তিনি। তার এই বিয়ের কথা দুই পরিবারের কেউ জানতো না। মাদানীর মোবাইল ফোনের ম্যাসেঞ্জারে বিভিন্নজনকে পাঠানো আপত্তিকর ছবিও পাওয়া গেছে।

র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম জানান, রফিকুল ইসলাম মাদানীর ফোনে অনেক কিছু পাওয়া গেছে। আমরা এসব বিষয়ে খতিয়ে দেখছি। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

জানা গেছে, মাওলানা রফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনায়। থাকেন গাজীপুরে। তিনি বিএনপি-জামায়াত জোটের শরিকদল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অঙ্গসংগঠন যুব জমিয়তের নেত্রকোনা জেলার সহ-সভাপতি। নেত্রকোনা জেলার পশ্চিম বিলাশপুর সাওতুল হেরা মাদ্রাসার পরিচালক রফিকুল ইসলাম রাবেতাতুল ওয়ায়েজিনের সঙ্গে যুক্ত আছেন। মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা না করেও নামের শেষে ‘মাদানী’ উপাধি ব্যবহার করে ওয়াজ মাহফিল করায় রফিকুল ইসলামকে একটি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছিল।

মাদ্রাসার ছাত্র থাকার সময় বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে ওয়াজ করতেন রফিকুল। 'শিশু বক্তা' হিসেবে হঠাৎ পরিচিত হয়ে ওঠা রফিকুল ইসলাম কিছুটা অস্বাভাবিক খর্বকায়, বালকসুলভ চেহারা ও কোমল কণ্ঠস্বরের অধিকারী। তার নিজের ভাষ্যমতে, ‘১৯৯৫ সালে আমার জন্ম। কে বলছে আমি শিশু? আমার বয়স ২৬ বছর।’

র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে রফিকুল জানান, প্রতিবার ওয়াজের জন্য তিনি ১৫ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা নিয়ে থাকেন। ওয়াজ করেই মাসে ৫-৬ লাখ টাকা আয় করেন তিনি। মাঝে মাঝে বিমান ও হেলিকপ্টারে গিয়ে ওয়াজ করেন। যারা তাকে নিমন্ত্রণ জানান, তারা এর খরচ বহন করেন।

 

advertisement