advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি
গুলি করে বিক্ষোভ দমনে সরকার

৮ এপ্রিল ২০২১ ০০:১৪
আপডেট: ৮ এপ্রিল ২০২১ ০০:১৪
advertisement


আলাপ-আলোচনার পরিবর্তে গুলি করে লাশ ফেলে সরকার জনবিক্ষোভ দমন করতে চায় বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। গতকাল বুধবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। সংবাদ সম্মেলনে আরও ছিলেন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম আজাদ, তাইফুল ইসলাম টিপু প্রমুখ।
এমরান প্রিন্স বলেন, সরকারের এক পদস্থ কর্মকর্তার উপস্থিতিতে তার কর্মচারী কর্তৃক এক দোকান কর্মচারীকে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় ফরিদপুরের সালথায় গণবিক্ষোভ, গুলি করে মানুষ হত্যা ও চার হাজার মানুষকে আসামি করা হয়েছে। এটা পরিষ্কার, সরকারের পায়ের নিচে শেষ মাটিটুকুও আর অবশিষ্ট নেই। তিনি সালথার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে দোষী কর্মকর্তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও নিহতের পরিবারকে ক্ষতিপূরণের দাবি জানান। জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বাস্তবতা হচ্ছে, সরকারি অব্যবস্থাপনায় লকডাউন বা নিষেধাজ্ঞা
কোনোটাই মাঠপর্যায়ে কার্যকর হচ্ছে না। বরং তাদের পরস্পরবিরোধী পদক্ষেপে মানুষ ঝুঁকির মধ্যে পড়ছে। সর্বত্র লেজেগোবরে অবস্থা। নানা দুর্ভোগে পড়েছে জনগণ।
অফিস-আদালত, কারখানা খোলা রেখে গণপরিবহন বন্ধের তীব্র সমালোচনা করেন প্রিন্স। আবার দুদিন পর গণপরিবহন চালু করলেও তা শুধু সিটি করপোরেশন এলাকার মধ্যে হওয়ায় কর্মজীবীদের দুর্ভোগ কমবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। প্রস্তুতি ছাড়াই একের পর এক পদক্ষেপ গ্রহণের অভিযোগ করে প্রিন্স বলেন, যারা এসি রুমে বসে বা সরকারি অফিসে বসে এসব সিদ্ধান্ত (লকডাউন) দেন তাদের বেতন ভাতা, মাস কিভাবে চলবেÑ সেটা নিয়ে চিন্তা করতে হয় না। তাদের এই অপরিকল্পিত ও প্রস্তুতিহীন পদক্ষেপের ফলে বিপাকে পড়তে হয় জনগণকেই। তিনি আরও বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় গত বছরের মতোই সরকারের পদক্ষেপ সমন্বয়হীন, অপরিকল্পিত, অদূরদর্শী ও কা-জ্ঞানহীন। এবার সরকার অনেক সময় হাতে পেলেও প্রস্তুতি না থাকায় গতবারের মতোই হযবরল অবস্থা।
বিএনপি নেতা প্রিন্স বলেন, ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা শহরে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল করোনা রোগীতে পরিপূর্ণ। কোনো সিট খালি নেই। নেই পর্যাপ্ত আইসিইউ, ভেন্টিলেটর ও অক্সিজেন। রোগীরা এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটতে ছুটতে পথের মধ্যেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন। এর দায় সরকারকেই বহন করতে হবে। হাসপাতালগুলোয় পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা, আইসিইউ, ভেন্টিলেটর ও অক্সিজেন নিশ্চিত করা এবং সরকারি খরচে পর্যাপ্ত করোনা টেস্টের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান প্রিন্স।
গত মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জের জেলা বিএনপি নেতা ইকবাল হোসেনকে বাসা থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া, চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় যুবদল নেতা বাবুল তালুকদার ও মানিককে গ্রেপ্তারের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবিও জানান প্রিন্স।

advertisement