advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

খোলা স্থানে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মেয়র দায়িত্ব নিলেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
৯ এপ্রিল ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ৮ এপ্রিল ২০২১ ২২:৫৩
advertisement

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের সহিংসতার ক্ষত কাটেনি এখনো। পৌরভবনের সামনে এখনো ধ্বংসস্তূপ। এ অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়রের দায়িত্বভার গ্রহণ ও পৌর পরিষদের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে খোলা আকাশের নিচে। গতকাল বৃহস্পতিবার

সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত নারী মেয়র দ্বিতীয় বারের মতো বিজয়ী হয়ে নতুন মেয়াদের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

নবনির্বাচিত মেয়র নায়ার কবির বলেন, দ্বিতীয়বারের মতো আমার এই দায়িত্বভার গ্রহণের অনুষ্ঠান আনন্দের হলেও এটি নস্যাৎ করে দিয়েছে গত ২৮ মার্চের হেফাজতের হরতাল চলাকালে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ। ঐতিহ্যবাহী ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভাটি আজ প্রাণহীন। পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সব নথিপত্র, রেকর্ড ও দেড়শ বছরের ঐতিহ্যকে। তাই বাধ্য হয়েই আজ খোলা আকাশের নিচে রাস্তায় বসে আমি মেয়রের দায়িত্বভার গ্রহণ করছি।

এ পরিস্থিতিতে পৌরসভার সকল নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেন মেয়র। এ ছাড়া দ্রুত সময়ের মধ্যেই নাগরিক সেবা চালু করা হবে আশ^াস দেন এবং সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। পৌরভবনের সামনে এখনো ধ্বংসস্তূপ। কার্যালয়ের সামনেই তাঁবু টানিয়ে রাখা হয়েছে। এটিতেই অস্থায়ী অফিস ও তথ্য সেবা কেন্দ্র চালু করার কথা জানানো হয়েছে। এ সময় পৌরসভার সচিব মো. শামছুদ্দিন আহমেদ, নির্বাহী প্রকৌশলী নিকাশ চন্দ্র মিত্র, সহকারী প্রকৌশলী মো. কাউসার আহমেদ, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মো. কাউসার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া পৌর পরিষদ, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ ব্যাপক তা-ব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থরা। তারা পুলিশ সুপারের কার্যালয়, সিভিল সার্জনের কার্যালয়, মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয়, পৌরসভা কার্যালয়, জেলা পরিষদ কার্যালয়, আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন, আলাউদ্দিন খাঁ পৌরমিলনায়তন, ভূমি অফিস ও খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা ভবনসহ বেশ কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে।

advertisement