advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

হবিগঞ্জের তেল শোধনাগারে অগ্নিকা-

তদন্ত কমিটি গঠন

হবিগঞ্জ ও বাহুবল প্রতিনিধি
৯ এপ্রিল ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ৮ এপ্রিল ২০২১ ২২:৫৩
advertisement

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার ভরগাঁওয়ে কনডেনসেট ফ্রাকশনেশন প্ল্যান্টে (সিএফপি) অগ্নিকা-ের ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। তেল শোধনাগারে আগুনের এ ঘটনা তদন্তে সিলেট গ্যাসফিল্ডের কোম্পানি সচিব প্রকৌশলী ফারুক হোসেনকে প্রধান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। চার সদস্যের এ কমিটিকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

বাহুবলের ভরগাঁওয়ের এ প্ল্যান্টে নবীগঞ্জ উপজেলার বিবিয়ানা গ্যাসকূপ থেকে কনডেনসেট পরিশোধন করে প্রতিদিন চার হাজার ব্যারেল পেট্রল, ডিজেল ও কেরোসিন উৎপাদন হয়ে থাকে।

এর আগে বুধবার রাত ১১টায় এ আগুনের সূত্রপাত হয়। হঠাৎ বিকট শব্দ করে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। প্ল্যান্টের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় আগুন নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি জাতীয় জরুরি নম্বর ৯৯৯-এ ফোন এবং ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ, শায়েস্তাগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল ও মৌলভীবাজার থেকে দমকল বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছে। ছয়টি ইউনিট একযোগে চেষ্টা চলিয়ে রাত দেড়টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বিশ্বস্ত

সূত্র জানায়, সরকারের একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে খোঁজ নিতে মাঠে নেমেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা প্ল্যান্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

প্ল্যান্টের কর্মকর্তা রওনকুল ইসলাম জানান, তেল পরিশোধের পর এর তরল বর্জ্য ড্রেনের মাধ্যমে বাইরে ফেলা হয়। তিনি ধারণা করছেন প্ল্যান্টের বাইরে ড্রেনে যে কোনোভাবে তরল বর্জ্যে আগুন লাগার পর তা ভেতরে পৌঁছে। সতর্কতার কারণে সংরক্ষিত তেলের কনটেইনারে আগুন লাগেনি। ব্যস্ততার কারণে তিনি বিস্তারিত বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক শিমুল মো. রফি জানান, রশিদপুর কনডেনসেট ফ্রাকশনেশনে দিনে চার হাজার ব্যারেল তেল পরিশোধন করা হয়। পরিশোধনের বর্জ্য একটি চৌবাচ্চায় জমা হয়। তরল বর্জ্য তিনটি ড্রেনের মাধ্যমে বাইরে ফেলা হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ঘটনার দিন রাতে ড্রেনে আগুন লেগে এই অগ্নিকা-ের সূত্রপাত। ফলে ড্রেনের ভেতর ও বাইরে পুরোটাতেই আগুন ধরে যায়। কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা প্ল্যাট কর্তৃপক্ষ সঠিক জানাতে পারবে।

বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্নিগ্ধা তালুকদার গতকাল বৃহস্পতিবার জানান, ঘটনার খবর পেয়ে তিনি তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান। অগ্নিকা-ে বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে, এ প্ল্যান্টের বর্জ্য থেকে আগুনের সূত্রপাত। সিসি টিভি ফুটেজ দেখে হয়তো ঘটনার বিস্তারিত কারণ জানা যাবে।

এ প্ল্যান্টে নবীগঞ্জ উপজেলার বিবিয়ানা গ্যাসকূপ থেকে কনডেনসেট পরিশোধন করে প্রতিদিন চার হাজার ব্যারেল পেট্রল, ডিজেল ও কেরোসিন উৎপাদন হয়ে থাকে। প্ল্যান্টের জেনারেল ম্যানেজার রওনকুল ইসলাম জানান, বিএসটিআই রিকোয়ারমেন্টের কারণে গত ১ অক্টোবর থেকে তেল উৎপাদন বন্ধ রয়েছে।

advertisement