টাকার লোভে অপহরণ করে হত্যা ঝোপে বন্ধুর লাশ

আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি
২৩ মার্চ ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ মার্চ ২০১৯ ০৮:৫৮

টাকার লোভে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার কলেজছাত্র ওয়াকিব সিকদারকে (২৪) হত্যা করেছে তার বন্ধুরা। গতকাল ভোরে মিঠাপুর গ্রামের চরপাড়া বারাশিয়া নদীসংলগ্ন একটি ঝোপ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় বিল্লাল হোসেন, ইমন শেখ ও রাকিব উদ্দীন নামে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার দায়ও স্বীকার করেছে তারা। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে উল্লেখ করে আলফাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম জানান, ওয়াকিব পার্শ্ববর্তী বোয়ালমারী উপজেলার দেউলি গ্রামের জলিল শিকদারের ছেলে। তিনি আলফাডাঙ্গা সরকারি কলেজের বিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। পাশাপাশি আলফাডাঙ্গা কলেজ রোডের নাজমা ক্লিনিকে ম্যানেজার হিসেবে চাকরি করতেন।

গত মঙ্গলবার রাতে কে বা কারা ওয়াকিবকে দেউলির নিজ বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এর পর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। বিষয়টি পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় জানালে তাকে উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করে পুলিশ। এর পর সন্দেহভাজন হিসেবে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আটক করা হয় ওয়াকিবের বন্ধু দেউলি গ্রামের বিল্লালকে। তার দেওয়া তথ্যে ওই তরুণের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য তা ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে একই গ্রামের ইমন ও রাকিবকেও গ্রেপ্তার করা হয়। তারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার দায় স্বীকার করেছে। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তারা জানায়, নাজমা ক্লিনিকের মালিকের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের চাঁদা আদায়ের জন্যই ওয়াকিবকে অপহরণ করা হয়। তবে মঙ্গলবার অজ্ঞানের উদ্দেশ্যে মাথার পেছনে আঘাত করলে তিনি মারা যান। পরে লাশটি তারা উপজেলার মিঠাপুর চরপাড়া বারাশিয়া নদীসংলগ্ন একটি ঝোপে ফেলে দেয়।