বংশাল থানার ৩ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

২১ মে ২০১৯ ০১:১৯
আপডেট: ২১ মে ২০১৯ ০১:১৯

অস্ত্র এবং মাদকের গডফাদার হিসেবে প্রচার করে মামলায় ফাঁসানোর ভয় দেখিয়ে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে বংশাল থানার তিন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন এক ব্যক্তি। গতকাল সোমবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে আব্দুস সালাম নামে জনৈক ব্যবসায়ী মামলাটি দায়ের করেন। বিচারক আবু সুফিয়ান মো. নোমান শুনানি শেষে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে আগামী ২৯ জুন প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। আসামিরা হলেনÑ বংশাল থানার এসআই রায়হান, এএসআই হাছেন এবং এএসআই অমিত।
মামলায় অভিযোগ, গ্রেপ্তারি পরোয়ানা আছে জানিয়ে গত ১৪ মে দুুপুর পৌনে ২টার দিকে বাদীর ভাই সাবের

মিয়াকে আসামিরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে থানায় নেওয়ার চেষ্টা করেন। তখন বাদী গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখতে চাইলে তারা তা দেখাতে পারেননি। তখন নানা টালবাহানা শুরু করে দেন। এর পর আসামি অমিত বলেন যে, সাবের মিয়া একজন তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী, তাকে ক্রসফায়ার দেওয়ার নির্দেশ আছে। এর পর আসামি হাছেন তাদের কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। তখন বাদী এবং তার ভাই বলেন, তাদের পক্ষে এত টাকা দেওয়া সম্ভব নয়। একপর্যায়ে এএসআই হাছেন ২ লাখ টাকা চান। কিন্তু ওই টাকাও না দিতে পারায় বাদীকে অস্ত্র এবং মাদকের গডফাদার বানিয়ে জেলে ঢুকিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন ওই পুলিশ কর্মকর্তারা।
প্রাণ রক্ষার্থে তারা আসামিদের ২ লাখ টাকা দিতে সম্মত হন। পরে আসামিরা তাদের ডিআইটি মার্কেটের ৫ নম্বর বিল্ডিংয়ের নিচতলায় হাজী আক্তার মিয়ার দোকানের সামনে আসতে বলেন। সে অনুযায়ী বাদী ও তার ভাই সেখানে গিয়ে আসামিদের ২ লাখ টাকা ঘুষ বুঝিয়ে দেন। ওই ঘুষ লেনদেনের আংশিক ঘটনা বাদীপক্ষের মোবাইলে ধারণ করা আছে বলেও এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।