১২শ পর্যটক আটকা পড়েছেন সেন্টমার্টিনে

টেকনাফ প্রতিনিধি
৯ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ৯ নভেম্বর ২০১৯ ০০:১১

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর কারণে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। এর ফলে সেন্টমার্টিনে প্রায় ১ হাজার ২শ পর্যটক ও স্থানীয় ৬শ টেকনাফে আটকা পড়েছেন। সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুর আহমদ এ তথ্য দিয়ে জানান, আটকা পড়লেও পর্যটকরা নিরাপদে রয়েছেন।

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর কারণে উপকূলে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এ কারণে বৃহস্পতিবার ৩ নম্বর সংকেত জারির পর ওই দিন বিকালেই

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আশরাফুল আফসার পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শুক্রবার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন সমুদ্রপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জানান, বৃহস্পতিবার ভ্রমণে আসা পর্যটকদের অনেকে রাত যাপনের জন্য এখানে থেকে গেছেন। হঠাৎ বৈরী আবহাওয়ার কারণে জাহাজ চলাচল বন্ধ হওয়ায় তারা আটকে গেছেন। এবং সেন্টমার্টিন থেকে স্থানীয় প্রায় ৬শ মানুষ টেকনাফে আটকা পড়ে আছেন।

স্থানীয় প্রশাসন পর্যটকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে উল্লেখ করে ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, দুর্যোগ না কাটা পর্যন্ত তাদের পরিচ্ছন্নভাবে হয়রানিমুক্ত আতিথেয়তা দিতে হোটেল কর্তৃপক্ষকে বলা আছে। আমি নিজেই রাতে এবং সকালে হোটেলগুলোতে গিয়ে খোঁজ-খবর নিয়ে পর্যটকদের আতঙ্কিত না হতে আশ্বস্ত করেছি।

কেয়ারি সিন্দাবাদ ও কেয়ারি ক্রুজের ইনচার্জ মো. শাহ আলম জানান, সমুদ্রে ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত ওঠার পরই শুক্রবার টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। শুক্রবার সকাল থেকে সংকেত বেড়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তাই জাহাজ সেন্টমার্টিনের পথে যায়নি।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিস জানায়, সাগরে এখন ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত জারি করা হয়েছে। টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধসহ সমুদ্রে সব ধরনের নৌযানকে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে বলা হয়েছে।