‘ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড’ র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশে দ্বিতীয় আইইউবিএটি

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
২২ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৮:৩৭ | আপডেট: ২২ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৮:৩৭

ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং-২০১৯ অনুযায়ী ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি (আইইউবিএটি) বাংলাদেশে দ্বিতীয় শীর্ষস্থান দখল করে নিয়েছে।

বিশ্বের ৮৫টি দেশের ৭৮০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আইইউবিএটির অবস্থান ২৪১তম। এই র‍্যাংকিংয়ের লক্ষ্য হলো বর্তমান পরিস্থিতি এবং সারা বিশ্ব জুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গ্রিন ক্যাম্পাস এবং টেকসই উন্নয়ন সম্পর্কিত নীতিমালার প্রতিফলন সমূহের ফলাফল প্রকাশ করা।

প্রতিবছর মোট ছয়টি মানদণ্ডের ভিত্তিতে এই র‌্যাংকিং প্রকাশ করে নেদারল্যান্ডসের ওয়াগেনিনজেন ইউনিভার্সিটি অ্যান্ড রিসার্চ। মানদণ্ডগুলো হলো- অবকাঠামো (১৫ শতাংশ), শক্তি ও জলবায়ু পরিবর্তন (২১ শতাংশ), আবর্জনা (১৮ শতাংশ), পানি (১০ শতাংশ), পরিবহন (১৮ শতাংশ) এবং শিক্ষা (১৮ শতাংশ)।

পরিবেশ উন্নয়নে ও পরিবেশবান্ধব ক্যাম্পাস নির্মাণে আইইউবিএটির প্রতিষ্ঠাতা ড. এম আলিমউল্যা মিয়ান সর্বপ্রথম ২০০৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়টিকে গ্রিন ক্যাম্পাস হিসেবে ঘোষণা করেন। তার ধারাবাহিকতায় ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং-২০১৯ অনুযায়ী আইইউবিএটি বাংলাদেশে দ্বিতীয় শীর্ষস্থান অর্জন করেছে।

আজ রোববার আইইউবিএটির ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড র‍্যাংকিং-২০১৯ এ বাংলাদেশে দ্বিতীয় শীর্ষস্থান অর্জন উদযাপনের অনুষ্ঠান করা হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ে উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার উপস্থিত ছিলেন। গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইইউবিএটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান জুবায়ের আলিম এবং সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. আবদুর রব।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন আইইউবিএটি ইনস্টিটিউট অব এসডিজি স্টাডিজের পরিচালক অধ্যাপক আতাউর রহমান। ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং-২০১৯ নিয়ে প্রেজেন্টেশন প্রদান করেন হাসানুজ্জামান তুষার।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. হামিদা আখতার বেগম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সেলিনা নার্গিস, রেজিস্ট্রার, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, চেয়ার, কো-অর্ডিনেট, শিক্ষক এবং শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার বলেন,‘শিক্ষার মান নিশ্চিত করার পূর্ব শর্ত হলো শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করা যা শতভাগ পূরণ করেছে আইইউবিএটি। আইইউবিএটির ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং ২৪১তম অবস্থান বিশ্বের বুকে বাংলাদেশের জন্য একটি বড় সম্মান।’

তিনি আরও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ও বৈশ্বিক কর্মক্ষেত্রের জন্য এ মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন শিক্ষায় নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সম উন্নয়ন। শিক্ষা মানোন্নয়ন এবং সবার একীভূত শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করা যা পূরণে কাজ করছে আইইউবিএটি। দেশের প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষার মানের সাথে পরিবেশ নিশ্চিত করলে সারা বিশ্বে উদারহণ হয়ে থাকবো।’ উচ্চ শিক্ষায় নারী উদ্যোক্তা তৈরিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বড় ভুমিকা রাখতে পারে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুর রব বলেন, ‘আইইউবিএটির যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৯১ সালে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও আইবিএর সাবেক পরিচালক শিক্ষাবিদ ড. এম আলিমউল্যা মিয়ান এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। আইইউবিএটির প্রত্যয় হলো-যোগ্যতা সম্পন্ন প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য উচ্চ শিক্ষার নিশ্চয়তা- প্রয়োজনে মেধাবী তবে অসচ্ছলদের অর্থায়ন। রাজধানীতে অবস্থিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সবুজ ঘেরা একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় আইইউবিএটি। এটি ঢাকার উত্তরায় ১৯ বিঘা জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত।’

উপাচার্য আরও বলেন, ‘সুন্দর লোকেশন, পরিবেশ, আয়তন কোনো কিছুই আইইউবিএটির ক্যাম্পাসকে ছাড়িয়ে যেতে পারে না। হাজারো মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের পদচারণায় প্রতিদিন মুখরিত হয় এই ক্যাম্পাস। পুরো ক্যাম্পাসে রয়েছে সবুজের ছোঁয়া। আইইউবিএটির লক্ষ্য হচ্ছে উপযুক্ত শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও দিক নির্দেশনার মাধ্যমে মানব সম্পদ উন্নয়ন করা যাতে করে শিক্ষার্থীরা দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে। শিক্ষার মানের সাথে পরিবেশের মান রক্ষা করার কারণেই ইউআই গ্রিন মেট্রিক ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং-২০১৯ অর্জন করতে পেরেছি। আগামীতে এ অর্জনের ধারা অব্যাহত রেখে সারা বিশ্বের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে স্থান করে নেওয়ার জন্য কাজ করছি আমরা।’