করোনা দিনমজুরকে বানাল পকেটমার, অতঃপর...

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩১ মার্চ ২০২০ ১৫:৩৫ | আপডেট: ৩১ মার্চ ২০২০ ১৫:৩৭
প্রতীকী ছবি

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেশজুড়ে নানা উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর জেরেই বেকার হয়ে পড়েছেন দিনমজুর এক যুবক। অবশেষে ক্ষুধার জ্বালা সহ্য করতে না পেরে পকেট মারতে গিয়ে গণপিটুনির শিকার হন তিনি।

আজ মঙ্গলবার সকালে নাটোরের গুরুদাসপুর পৌর শহরের চাঁচকৈড় মাছবাজারে ঘটেছে এ ঘটনা। গণপিটুনির শিকার ওই যুবকের (৩০) বাড়ি লালপুর উপজেলায়।

জানা গেছে, কিছুদিন আগে দিনমজুরি করে টেনেটুনে সংসার চালালেও এখন আয়-রোজগার বন্ধ ওই যুবকের। ফলে পরিবারের সদস্যদের মুখে খাবারও তুলে দিতে পারছিলেন না। তাই অন্য কোনো উপায় না দেখে পকেট মারতে যান তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী মো. জয়েন উদ্দিন জানান, গতকাল সোমবার সকালে ওই যুবক চাঁচকৈড় মাছবাজারে এসে চার থেকে পাঁচজন ক্রেতার পকেটে হাত দিয়েছিলেন। সর্বশেষ আলাল খলিফা নামের একজন ব্যবসায়ীর পকেটে হাত দিয়ে টাকা নেওয়ার সময় ধরা পড়েন তিনি। এ সময় বাজারের উপস্থিত ক্রেতারা তাকে পিটুনি দেন।

পরে যুবকটি তার সমস্যার কথা জানালে এলাকাবাসী মানবিক কারণে তাকে ছেড়ে দেন বলে জানান এই প্রত্যক্ষদর্শী।

ওই যুবকের বরাত দিয়ে স্থানীয় কয়েকজন বলেন, তার বাড়ি লালপুর সদরে। বাড়িতে স্ত্রী, দুই সন্তান ও বৃদ্ধ মা রয়েছেন। করোনাভাইরাসের প্রভাবে সৃষ্ট চলমান পরিস্থিতির কারণে উপার্জন না থাকায় পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতে পারছিলেন না তিনি। পরিবারের সদস্যদের জন্য নিত্যপণ্য কেনার জন্য চাঁচকৈড় মাছবাজারে এসে পকেট মারার চেষ্টা চালান তিনি। তবে তিনি পেশাদার পকেটমার নন।

তারা আরও বলেন, মারধরের একপর্যায়ে পরিস্থিতির শিকার ওই যুবকের কথা শুনে উপস্থিত সবাই দুঃখ প্রকাশ করে তাকে ছেড়ে দেন। পরে কয়েকজন মিলে তার হাতে ৩০০ টাকা তুলে দেন। পরে ওই টাকা নিয়েই তিনি বাড়ি ফিরে গেছেন।