লকডাউনের মধ্যেই ধুমধাম করে বিয়ে, সরকারি কর্মকর্তা বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
৯ এপ্রিল ২০২০ ২৩:১৩ | আপডেট: ৯ এপ্রিল ২০২০ ২৩:২৫
বিয়ের অনুষ্ঠানে বর, কনেসহ বরযাত্রীরা। ছবি: সংগৃহীত

লকডাউনের মধ্যে ধুমধাম করে বিয়ে করায় চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছেন নারায়ণগঞ্জের পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক শাহিন কবির। আজ বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার আমিনপুর ইউনিয়নের পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক শাহিন কবিরকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

ঢাকা বিভাগীয় পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় থেকে শাহিনকে বরখাস্ত করে সেই আদেশ আমিনপুর ইউনিয়নের পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শককে পাঠানো হয়েছে।

ওই আদেশে বলা হয়েছে, শাহিন কবির দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব চলাকালে ৭ এপ্রিল একই উপজেলার সনমান্দি ইউনিয়নে গিয়ে বিবাহের নিমিত্তে অধিক জনসমাগম করেছেন। উক্ত কার্যক্রম আইন ও সরকারি চাকরিবিধির পরিপন্থি বিধায় তাকে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা- ২০১৮ এর বিধি ১২ মোতাবেক চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।

বরখাস্ত থাকা অবস্থায় শাহিন নিয়ম অনুযায়ী খোরপোষভাতা পাবেন বলে আদেশে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকার ঘোষিত লকডাউনের মধ্যেই ধুমধাম করে বিয়ে করেন শাহিন কবির। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ পৌরসভার গোচাইট এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার সনমান্দি গ্রামের জামাল উদ্দিনের মেয়ে নাদিয়া আক্তারকে বিয়ে করেন শাহীন। তার বরযাত্রায় ৭০ জন অংশ নেন। বিয়েবাড়িতে ধুমধাম করে খাওয়াদাওয়া সেরে কাজি ডেকে বিয়ে পড়ানো হয়। পরে স্থানীয় লোকজন খবর পেয়ে করোনাভাইরাসের এমন সময় বিয়ের আয়োজন করায় বরপক্ষকে অপদস্থ করেন। একপর্যায়ে শাহিন কবির ও তার সঙ্গে অতিথি হয়ে আসা বরযাত্রীরা কনে নাদিয়া আক্তারকে রেখে দ্রুত এলাকা ছাড়েন।

বিষয়টি জানার পর গতকাল বুধবার বিকেলে শাহীন কবিরের বাড়িতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাইদুল ইসলাম পুলিশ নিয়ে হাজির হন। ইউএনওর উপস্থিতি টের পেয়ে শাহীন কবির বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। পরে ইউএনও ওই বাড়িতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে শাহীন কবিরের ছোট ভাই সোহেল মিয়াকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

সে সময় শাহিন কবিরের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে সুপারিশ করার কথা জানান ইউএনও।