মার্কিন পতাকা অর্ধনমিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
২৩ মে ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ মে ২০২০ ০৮:১৪

করোনা ভাইরাস মহামারীতে যুক্তরাষ্ট্রের মৃত নাগরিকদের সম্মানে তিন দিন পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার তিনি এ নির্দেশ দেন। ওই নির্দেশনা অনুযায়ী, দেশটির পতাকা শুক্রবার থেকে রবিবার পর্যন্ত অর্ধনমিত থাকবে।

ডববিসি জানিয়েছে, সোমবারও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে যুক্তরাষ্ট্রে। সেদিন তাদের মেমোরিয়াল ডে। যুদ্ধে লড়াকু সৈনিকদের সম্মানে এদিন পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে বলে টুইটারে লিখেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃতের সংখ্যা যখন এক লাখের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তখন এ ঘোষণা দিলেন ট্রাম্প। দেশটির বিরোধী দল ডেমোক্র্যাটের পক্ষ থেকে এক লাখ প্রাণহানি হলে পতাকা অর্ধনমিত করার আহ্বান জানানো হয়েছিল।

টুইটারে ট্রাম্প লিখেছেন, করোনা ভাইরাসে যেসব আমেরিকান নাগরিকের প্রাণহানি হয়েছে তাদের সম্মানে সব কেন্দ্রীয় ভবন ও জাতীয় স্মৃতিস্তম্ভে আগামী তিন দিন পতাকা অর্ধনমিত রাখব।

ট্রাম্প আরও জানিয়েছেন, সোমবার পর্যন্ত পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। ওই দিন দেশটি স্মৃতি দিবস পালন করবে। দায়িত্ব পালনের সময় যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর প্রয়াত সেনাদের স্মরণে দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। এখন পর্যন্ত দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ৯৬ হাজার ৩৮৯। করোনায় বিশ্বের সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রেই আক্রান্ত হয়েছে ১৬ লাখের বেশি। মানে, বিশ^ব্যাপী আক্রান্তদের তিন ভাগের এক ভাগই মার্কিন নাগরিক।

করোনা সংক্রমণে হোয়াইট হাউসের দীর্ঘ পাঁচ দশক দায়িত্ব পালন করা ৯১ বছর বয়সী সাবেক পরিচারক উইলসন রুজভেল্ট জেরমান মারা গেছেন। আরও বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী কর্মকর্তা কোয়ারেন্টিনে থেকে করোনার চিকিৎসা নিচ্ছেন।

১৯৫৭-২০১২ পর্যন্ত দীর্ঘ ক্যারিয়ারে যুক্তরাষ্ট্রের ১১ জন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা হয়েছিল জেরমানের। প্রথমে হোয়াইট হাউসের পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে কাজ নিয়েছিলেন তিনি। পরে কাজ করেছেন দারোয়ান হিসেবেও। একপর্যায়ে যুক্তরাষ্ট্রের ৩৫তম প্রেসিডেন্ট থিওডোর রুজভেল্টের ফার্স্ট লেডি জেকি কেনেডি জেরমানকে পরিচারক পদে পদোন্নতি দেন। এর কয়েকদশক পর সাবেক ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামাও তাকে সম্মানিত করেন।

মিশেলের আত্মজীবনী বই ‘বিকামিং’-এ জেরমানের একটি ছবিও রয়েছে। জেরমানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন মিশেল। জানিয়েছেন, তার মতো একজন মানুষের সঙ্গে পরিচিত হতে পেরে তাদের পরিবার গর্বিত। ‘আমাদেরসহ হোয়াইট হাউসে ফার্স্ট ফ্যামিলিগুলোকে দশকের পর দশক অসাধারণ সেবা দিয়ে সহযোগিতা করেছেন তিনি’।