জুনে দিনে ধর্ষণের শিকার ৩ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ২ জুলাই ২০২০ ২২:৫৯

মহামারী করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও গত জুন মাসে সারাদেশে দৈনিক গড়ে ধর্ষিত হয়েছে ৩ জনেরও বেশি নারী ও কন্যাশিশু। আর নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১০ জনেরও বেশি। গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ভয়াবহ এ তথ্য জানায় বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। এর আগে মার্চ, এপ্রিল ও মে মাসের সংবাদ পর্যালোচনা করে মহিলা পরিষদ জানিয়েছিল, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রথম ৩ মাসে দেশে ৪৮০ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে।

১৪টি জাতীয় দৈনিকের সংবাদ পর্যালোচনাভিত্তিক পরিসংখ্যানে মহিলা পরিষদ জানায়, গেল মাসে সারাদেশে ৩০৮ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তাদের মধ্যে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ১০১ জন, যাদের মধ্যে দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে ২৫ জনকে এবং ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৭ জনকে। এ ছাড়া ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে ১৫ জনকে।

অন্যদিকে বিভিন্ন কারণে ৬২ জন নারী ও কন্যাশিশুকে হত্যা করা হয়েছে। যৌতুকের বলি হয়েছেন পাঁচ নারী। হত্যা করা হয়েছে দুই গৃহপরিচারিকাকে এবং এক গৃহপরিচারিকা আত্মহত্যা করেছেন। এ সময়ে বিভিন্ন নির্যাতনের কারণে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন ১৭ জন; আর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে ৩৪ নারী ও

কন্যাশিশুর। এ ছাড়া গত জুনে শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছেন তিন নারী ও শিশু। যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ছয়জন। এসিডদগ্ধ হয়েছেন একজন।

অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন চারজন, এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের।

গেল ৩০ দিনে ১৪ জন অপহৃত হয়েছেন। পতিতালয়ে বিক্রি করা হয়েছে একজনকে। যৌতুকের কারণে নির্যাতন করা হয়েছে সাতজনকে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৯ জন। নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন আরও দুজন নারী ও শিশু। ফতোয়ার শিকার হয়েছেন একজন, বাল্যবিয়ে হয়েছে একজনের।