তুরস্কে ২০ সৌদির বিচার শুরু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
৪ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৪ জুলাই ২০২০ ০০:২৩

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যায় অভিযুক্ত ২০ সৌদি কর্মকর্তার বিচার তাদের অনুপস্থিতিতেই শুরু করেছে তুরস্ক। ২০১৮ সালে তুরস্কে ইস্তানবুলের সৌদি কনস্যুলেটে খুন হয়েছিলেন খাশোগি।

ইস্তানবুলের কৌঁসুলিরা খাশোগিকে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের দুই সাবেক সহযোগী এবং আরও ১৮ জনকে অভিযুক্ত করেছে।

বিবিসি জানিয়েছে, ইস্তানবুুলের আদালতেই শুক্রবার শুরু হয়েছে তাদের বিচার। খাশোগি হত্যাকা- নিয়ে বিশ্বব্যাপী তোলপাড়ের পর তুরস্কে এ বিচার শুরু হলো।

তুর্কি কৌঁসুলিরা খাশোগি হত্যা অভিযান পরিচালনা করা এবং নির্দেশনা দেওয়ার অভিযোগ এনেছেন সৌদি আরবের সাবেক উপপ্রধান গোয়েন্দা কর্মকর্তা আহমেদ আল আসিরি এবং রয়াল কোর্টের মিডিয়া উপদেষ্টা সৌদ আল কাহতানির বিরুদ্ধে।

অন্য ১৮ সৌদি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে খাশোগির শ্বাসরোধ করার অভিযোগ আনা হয়েছে। খাশোগির দেহাবশেষ আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। তুরস্কের কর্মকর্তাদের ভাষ্য, খাশোগির মৃতদেহ টুকরা টুকরা করে কনস্যুলেট ভবন থেকে অন্য কোথাও সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

২০ জনের বিচারের মধ্য দিয়ে মৃতদেহ কোথায় সে সম্পর্কে নতুন তথ্যপ্রমাণ বেরিয়ে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন খাশোগির বাগদত্তা হাতিস চেঙ্গিস। বিচারের শুনানিতে চেঙ্গিস উপস্থিত থাকছেন। তার সঙ্গে আরও উপস্থিত রয়েছেন নির্বিচার হত্যাকা-বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূত এগনেস ক্যালামার্ড। তিনি খাশোগি হত্যাকা-ের জন্য সৌদি আরবকে দায়ী করেছেন এবং তার মতে, এ হত্যাকা- পূর্বপরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে।

সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করতেন। সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কঠোর সমালোচক ছিলেন তিনি। খাশোগির হত্যাকা-ে বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড়ে যুবরাজ সালমানের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ ও পশ্চিমা সরকারগুলো বলছে, এ খুনের আদেশ স্বয়ং যুবরাজ মোহাম্মদ দিয়েছেন বলে তাদের বিশ্বাস। কিন্তু এ ঘটনায় যুবরাজের কোনো ভূমিকা নেই বলে দাবি করেন সৌদি কর্মকর্তারা।

সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ প্রথমে এ ঘটনায় জড়িত থাকার দায় অস্বীকার করলেও পরে ঘটনাটি ‘দুর্বৃত্ত অভিযান’ বলে বর্ণনা করেছিল। হত্যাকা-ের ঘটনায় সৌদি আরব আলাদাভাবে বিচার কাজও চালায়। কিন্তু তা অসম্পূর্ণ বলে তীব্র সমালোচনা হয়েছে।