নতুন তফসিল দাবি বিএনপির

প্রদীপ মোহন্ত বগুড়া
৮ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ৮ জুলাই ২০২০ ০২:২৬

আগামী ১৪ জুলাই বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) শূন্য আসনে উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হবে। সেই হিসাবে আর মাত্র ৫ দিন বাকি আছে। কিন্তু এখনো ভোটকেন্দ্রগুলো প্রস্তুত নেই। দুই উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে মোট ভোটকেন্দ্র ১২৩টি। এর মধ্যে বন্যার পানিতে নিমজ্জিত অন্তত নয়টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা সম্ভব নয়। আর এজন্য এই নয়টি ভোটকেন্দ্র অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছে বগুড়া-১ আসনের রিটার্নিং অফিসার। এর মধ্যে সারিয়াকান্দি উপজেলায় ছয়টি এবং সোনাতলা উপজেলায় তিনটি ভোটকেন্দ্র

রয়েছে।

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার বিকালে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির (ধানের শীষ) জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে নতুন নির্বাচনের তফসিল দাবি করে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। এতে বলা হয়েছে, করোনার মহামারী ও বন্যার মধ্যে কোনো নির্বাচন হতে পারে না। এজন্য নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়া হোক। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন বগুড়া জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সাম্পদক মাফতুন আহমেদ রুবেল, সোনাতলা উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক আহসান হাবিব রাজাসহ অন্যরা।

বন্যা ও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ উপেক্ষা করে ইসি ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় বিএনপির পক্ষ থেকে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

বগুড়ার নবাগত জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক যোগদানের একদিনের মাথায় সোমবার বিকালে সারিয়াকান্দি উপজেলার দুর্গত এলাকার ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন করেন। তিনি যমুনা নদীর দুর্গম বেশ কয়েকটি চর ঘুরে বন্যায় প্লাবিত ছয়টি কেন্দ্র বিকল্প স্থানে সরিয়ে নেওয়ার সুপারিশ করেছেন।

বন্যা­র পানিতে নিমজ্জিত সোনাতলা উপজেলার তিনটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ সম্ভব না হওয়ায় তা পার্শ্ববর্তী বিকল্প স্থানে সরিয়ে নেওয়ার জন্য সোমবার নির্বাচন কমিশনে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সোনাতলা উপজেলায় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা এএসএম জাকির হোসেন রিটার্নিং কর্মকর্তার মাধ্যমে এই চিঠি পাঠান।

সোনাতলার কেন্দ্রগুলো হলোÑ তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের মহেশপাড়া চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তেকানীচুকাইনগর পিএম দাখিল মাদ্রাসা এবং বালিয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

সারিয়াকান্দির কেন্দ্রগুলো হলোÑ চালুয়াবাড়ি ইউনিয়নের দুর্গম চরের বিরামের পাঁচগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চর চালুয়াবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাটশেরপুর ইউনিয়নের চকরতিনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কামালপুর ইউনিয়নের রোহদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুতুবপুর ইউনিয়নের ঘুঘুমারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং নিজামউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্র।

সোনাতলায় বন্যার পানিতে নিমজ্জিত তিনটি কেন্দ্রে বর্তমানে দুই থেকে তিন ফুট পানি। এ অবস্থায় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার পক্ষ থেকে মহেশপাড়া চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়ন পরিষদে, তেকানীচুকাইনগর পিএম দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্র তেকানীচুকাইনগর এএম উচ্চবিদ্যালয়ে এবং বালিয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র প্রতিভা আদর্শ শিশু নিকেতনে সরিয়ে নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

সোনাতলা উপজেলার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এএসএম জাকির হোসেন প্রস্তাব পাঠানোর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করে দেখা গেছে, বন্যা পরিস্থিতির কারণে তিনটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ সম্ভব নয়। এসব কেন্দ্র বিকল্প স্থানে সরিয়ে নেওয়ার জন্য ইসিতে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

সারিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাসেল মিয়া বলেন, বর্তমানে বন্যার কারণে ছয়টি কেন্দ্রে ১৪ জুলাই অনুষ্ঠেয় ভোট গ্রহণ করা সম্ভব নয়। সরেজমিন দেখে ডিসি স্যার এই ছয়টি কেন্দ্র বিকল্প স্থানে সরিয়ে নেওয়ার সুপারিশ করেন। ডিসি স্যারের সুপারিশ মোতাবেক ওই ছয়টি কেন্দ্র পার্শ্ববর্তী স্থানে সরিয়ে নেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

এর মধ্যে বিরামের পাঁচগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র চর কর্নিবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, চর চালুয়াবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র পাকেরদহ-২ নির্মাণাধীন গুচ্ছগ্রামে, চকরতিনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র হাটশেরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, ঘুঘুমারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র আয়েশা-ওসমান বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে ও নিজাম উদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রটি মথুরাপাড়া বিকে উচ্চবিদ্যালয়ে সরিয়ে নেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত গত ১৮ জানুয়ারি সাংসদ আবদুল মান্নানের মৃত্যুর কারণে আসনটি শূন্য হয়। নির্বাচন কমিশন ২৯ মার্চ ভোট গ্রহণের দিন ধার্য করে তফসিল ঘোষণা করে। ৯ মার্চ প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে প্রচার শুরু করেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা।

নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেনÑ আওয়ামী লীগের সাহাদারা মান্নান (নৌকা), বিএনপির একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির মোকছেদুল আলম (লাঙ্গল), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের নজরুল ইসলাম (বটগাছ), বাংলাদেশ প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) মো. রনি (বাঘ) ও স্বতন্ত্র ইয়াসির রহমতুল্ল­াহ (ট্রাক)।

মার্চে দেশে করোনার সংক্রমণ দেখা দেওয়ায় প্রার্থীদের প্রচারে ভাটা পড়ে। ২১ মার্চ নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।