সাময়িক পিছু হটেছে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৩ জুলাই ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০২০ ২২:১১

ভারত-চীন সীমান্তে প্যাংগং লেকের বিতর্কিত ফিঙ্গার-৪ এলাকায়ও ক্রমশ কমছে চীনা সেনার উপস্থিতি। তবে এখনো সেখানে বেইজিং নির্মিত তাঁবু ও শেড রয়ে গেছে। ১০ জুলাইয়ে ধারণকৃত স্যাটেলাইট ইমেজ ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রকে উদ্ধৃত করে ভারতীয় সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভি এ তথ্য জানিয়েছে।

গত সোমবার থেকেই প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর সেনা প্রত্যাহার শুরু করেছিল চীন। তবে প্যাংগং হ্রদ এলাকায় ফিঙ্গার ফোর এবং অন্য কয়েকটি এলাকার ঘাঁটি ছাড়তে নারাজ ছিল পিএলএ। এরই মধ্যে শুক্রবার ভারত ও চীনের মধ্যে সীমান্ত ইস্যুতে আবারও বৈঠক হয়। সাম্প্রতিক আলোচনার পর নয়াদিল্লির তরফে বলা হয়, ‘রাষ্ট্রনেতাদের ঐকমত্যে পৌঁছানোর মত মেনে চলা হবে’ এবং ‘সমস্যা তৈরি করে মতপার্থক্য রাখা হবে না’। এ ছাড়াও বিবৃতিতে জানানো হয়, ‘দ্রুততার সঙ্গে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ডিসএগেজমেন্ট প্রক্রিয়া শেষ করতে সম্মত হয়েছে দুই পক্ষই।’ সমঝোতা অনুযায়ী এলএসি বরাবর দুই কিলোমিটার পিছু হটবে দুই দেশের বাহিনী। সীমান্তের কয়েকটি বিতর্কিত জায়গায় সেই সমঝোতা সম্পন্ন করেছে দুই দেশের সামরিক বাহিনী। তবে প্যাংগং লেকের ফিঙ্গার-৪ এলাকায় চীনা সেনার গতিবিধি দেখা গিয়েছিল। এবার ১০ জুলাইয়ের স্যাটেলাইট চিত্র বিশ্লেষণ করে এনডিটিভি জানিয়েছে, পেট্রোলিং পয়েন্ট-১৪ থেকে চীনা সেনাদের পিছু হটার প্রমাণ মিলেছে। সেনা সরেছে প্যাংগং এলাকা থেকেও। তবে চীনা হোভারক্রাফ্ট প্যাংগং লেকসংলগ্ন এলাকায় পড়ে রয়েছে। এমনকি, দশটি বড়মাপের নৌকাও ফিঙ্গার-৪ এলাকার পূর্ব প্রান্তে ধরা পড়েছে উপগ্রহ চিত্রে। এ ছাড়াও স্যাটেলাইট চিত্রে দেখা গেছে, কিছু জায়গায় নির্মাণগুলো ভেঙে দেওয়া হয়েছে এবং জায়গাটি পরিষ্কার। এ এলাকাটি পেট্রোল পয়েন্ট ১৪ নম্বরে, যেখানে ১৫ জুন লাঠি, রড, পাথর নিয়ে সংঘর্ষ হয় ভারত ও চীনা সেনাদের। সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা জওয়ান নিহত হন।

ভারতীয় বাহিনীর দাবি, চীনের পক্ষেও অন্তত ৪৫ জন হতাহত হয়েছে।