শান্ত-আফিফদের সঙ্গে পারেননি রিয়াদ-মুমিনুলরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৭ অক্টোবর ২০২০ ২২:৩৭ | আপডেট: ১৭ অক্টোবর ২০২০ ২২:৩৭

প্রথমবারের দেখায় হার চার উইকেটে। দ্বিতীয় বারের দেখায় যেন প্রথমবারকে ছাপিয়ে যাওয়ার চেষ্টা; আরও বড় ব্যবধানে হার! ঘটনাটি ঘটেছে শান্ত -রিয়াদদের মধ্যকার দুবারের দেখায়। ফলাফল একটাই; শান্তদের জয়। প্রথমবার চার উইকেটে, দ্বিতীয়বার ১৩১ রানের বড় ব্যবধানে।

দুবারের হারে বিসিবি প্রেসিডেন্ট’স কাপের ফাইনালে ওঠার রেসে পিছিয়ে গেল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ শনিবার দুপুরে মুখোমুখি হন শান্ত-রিয়াদ। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই তিন উইকেট হারান শান্তরা। শুরুর ধাক্কা সামলে দলকে বড় রানের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন আফিফ-মুশফিক। দুজনের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ৩১ রানে তিন উইকেট পড়া নাজমুল একাদশের চতুর্থ উইকেট পড়ে ১৭৮ রানে।

মুশফিক-আফিফের জুটি থেকে আসে ১৪৭ রান। আফিফ ১০৮ বলে ১২ চার ও এক ছয়ের মারে ৯৮ রান করেন। আফিফের আউটের পর স্কোরবোর্ডে ৯ রান যোগ না হতেই মুশফিকও ফেরেন সাজঘরে। ৯০ বলে ব্যক্তিগত ৫২ রানের মাথায় এবাদতের বলে উইকেটের পেছনে নুরুল হাসান সোহানের হাতে ক্যাচ দেন তিনি। শেষদিকে ইরফান শুক্কুরের ৩১ বলে ৪৮ রানের ঝোড়ো ইনিংসে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৫ রানের টার্গেট দেন তারা।

এই লক্ষ্যে খেলতে নেমে ১৩৩ রানেই অল-আউট মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ-মুমিনুল হকরা। সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন লিটন দাস। সোহান ২৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। ১১ রান আসে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর ব্যাট থেকে। ১০ রান করেন সাব্বির। ফলাফল ১৩১ রানের বিশাল হার। নাসুম আহমেদ ও আবু জায়েদ রাহী নেন সর্বোচ্চ তিনটি করে উইকেট। দুটি উইকেট নেন রিশাদ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
নাজমুল একাদশ: ৫০ ওভারে ২৬৪/৮ (পারভেজ ১৯, সৌম্য ৮, শান্ত ৩, মুশফিক ৫২, আফিফ ৯৮, হৃদয় ২৭, শুক্কুর ৪৮*, রিশাদ ১, তাসকিন ০, নাসুম ০*; ইবাদত ১০-০-৬০-২, রুবেল ১০-২-৫৩-৩, সুমন ৯-০-৫২-১, রকিবুল ১০-০-৩২-০, মিরাজ ৯-০-৪৮-০, মাহমুদউল্লাহ ২-০-১৮-০)।
মাহমুদউল্লাহ একাদশ: ৩২.১ ওভারে ১৩৩ অল আউট (ইমরুল ৪, লিটন ২৭, মুমিনুল ১৩, মাহমুদুল হাসান ১৩, মাহমুদউল্লাহ ১১, নুরুল ২৭*, সাব্বির ১০, মিরাজ ১৬, রাকিবুল ০, সুমন ২, রুবেল ১; তাসকিন ৬-২৫-০-০, আল আমিন ৫-১-২০-১, নাসুম ৮.১-১-২৩-৩, রাহি ৭-০-৩৪-৩, রিশাদ ৬-০-২৬-২