নওগাঁয় আনোয়ার, ঢাকায় মনুর জয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৮ অক্টোবর ২০২০ ০০:১৫ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০২০ ০৯:০০
নওগাঁ-৬ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আনোয়ার হোসেন এবং ঢাকা-৫ আসনের কাজী মনিরুল ইসলাম মনু

নওগাঁ-৬ (রানীনগর-আত্রাই) আসনের উপনির্বাচনে ১ লাখ ৫ হাজার ৪৬৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আনোয়ার হোসেন (নৌকা)। ভোট গ্রহণ শেষের আগেই বর্জনের ঘোষণা দেওয়া বিএনপির প্রার্থী শেখ রেজাউল ইসলাম (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৪ হাজার ৫১৭ ভোট। হারের পর আজ রোববার হরতালের ঘোষণা দেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাফিজুর রহমান।

অপর দিকে ঢাকা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী মনিরুল ইসলাম মনু বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৪৫৬৪২ ভোট। বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ পেয়েছেন ২৯২৬ ভোট।

শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আসনটির রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান ফলাফল ঘোষণা করেন। এ নির্বাচনী আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৬ হাজার ৭২৫ জন। নির্বাচনে অংশ নেওয়া আরেক প্রার্থী ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) খন্দকার ইন্তেখাব আলম (আম) পেয়েছেন ১ হাজার ৮০৫ ভোট।

সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। বিকেল সাড়ে তিনটায় সংবাদ সম্মেলন করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন বিএনপির প্রার্থী শেখ রেজাউল ইসলাম। নির্বাচনী এজেন্টদের ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া, সাধারণ ভোটারদের ভোটদানে বাধা দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন তিনি।

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নওগাঁ শহরের কেডির মোড়ে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে ভোট কারচুপির অভিযোগে বিক্ষোভ সমাবেশ করে নওগাঁ জেলা বিএনপি। ওই সমাবেশ থেকে আজ রোববার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত রানীনগর ও আত্রাই উপজেলায় হরতালের ঘোষণা দেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাফিজুর রহমান।

এদিকে ঢাকার ৫ আসনে নির্বাচনে হারের পর নিজের জামানত হারিয়েছেন সালাহউদ্দিন আহমেদ। এর আগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-৪ (শ্যামপুর-কদমতলী) আসনে অংশ নিয়েও জামানত হারান তিনি। নির্বাচনের মাঠে অধিকাংশ কেন্দ্রেই বিএনপি নেতাকর্মীদের দেখা মেলেনি। ভোট কেন্দ্রের বাইরে সরব ও তৎপর ছিলো আওয়ামী লীগ কর্মীরা। ভোটের উৎসবকে নষ্ট হওয়ার জন্য বিএনপির হাইকমান্ডকে দায়ী করেছেন স্থানীয় জনগণ।