গুচ্ছ প্রক্রিয়ার ভর্তি পরীক্ষা শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি দূর করবে

আল মামুন,বরিশাল
২৮ নভেম্বর ২০২০ ২১:৫২ | আপডেট: ২৮ নভেম্বর ২০২০ ২১:৫৪
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. ছাদেকুল আরেফিন। ছবি : আমাদের সময়

মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার আদলে সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত বা গুচ্ছ প্রক্রিয়ায় একসঙ্গে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) উপাচার্য মো. ছাদেকুল আরেফিন। বৈশ্বিক মহামারি করোনাকালে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা এবং শারীরিক ও আর্থিক ভোগান্তি থেকে মুক্তি দিতেই এই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন চান উপাচার্য। দৈনিক আমাদের সময়’র সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে উপাচার্য এ কথা বলেন।

গত বুধবারের ওই সাক্ষাতকারে অধ্যাপক ছাদেকুল আরেফিন বলেন, ‘গুচ্ছ প্রক্রিয়ার আলোকে ভর্তি পরীক্ষায় যেমন অর্থ অপচয় রোধ হবে, তেমনি হয়রানি লাঘব হবে। বিশেষ করে বর্তমান পরিস্থিতিতে ছাত্রীদের পক্ষে সারা দেশে ঘুরে ঘুরে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া সম্ভব নয়।’

করোনাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে জানিয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. ছাদেকুল আরেফিন বলেন, ‘অধিকাংশ বিভাগেই অনলাইনে ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের মতামত পেলে পরীক্ষা নেওয়া হবে।’

করোনার দুর্যোগে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ সেন্টার থেকে শতাধীক শিক্ষার্থীকে স্বাস্থ্যসেবা, ২৪টি বিভাগের দেড়শ’ দরিদ্র শিক্ষার্থীকে আর্থিক সহযোগিতা, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের একদিনের বেতন প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রদান করা হয়। জনবল ও আবাসন সংকটের কথা উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অপেক্ষাকৃত নতুন বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে অনেককিছুর অভাব রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে জনবল সংকট ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন দরকার। অতিদ্রুত একটি ছাত্রাবাস, শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন, অ্যাকাডেমিক এবং মিলনায়তন ভবন প্রয়োজন।’

ইউজিসি সূত্র জানায়, করোনা মহামারির কারণে বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব করেছিলেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে (ইউজিসি) অনুষ্ঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির সভায় ওই প্রস্তাব নাকচ হয়ে যায়। ফলে শারীকিভাবে উপস্থিতির মাধ্যমে অংশগ্রহণে পরীক্ষার পথ উন্মুক্ত হয়। ওই সভায় অধিকাংশ উপাচার্যের মতামতে গুচ্ছ প্রক্রিয়ার ভর্তি পরীক্ষাই পছন্দের শীর্ষে।

ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর দৈনিক আমাদের সময়কে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বার্থে গুচ্ছ প্রক্রিয়ার পরীক্ষার প্রস্তাব দীর্ঘদিনের। পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় বাদে বাকি ৩৪টি গুচ্ছ প্রক্রিয়ায় ভর্তিতে একমত। তারপরও শিক্ষামন্ত্রী প্রস্তাবে রাজি না হওয়া পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে বৈঠক করেছেন। তারাও রাজি হলে এবার আর কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা পরীক্ষা হবে না।’

প্রসঙ্গত, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৪টি বিভাগের বিপরীতে আসন সংখ্যা ১ হাজার ৪৪৫টি।