জয়ের কাছে গিয়েও হারল বাংলাদেশ

  ক্রীড়া ডেস্ক

১৭ মে ২০১৭, ২১:৪৩ | আপডেট : ১৮ মে ২০১৭, ০০:৩১ | অনলাইন সংস্করণ

ত্রিদেশীয় সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের কাছাকাছি গিয়েও হারল বাংলাদেশ। মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে থেকেও চার উইকেটে হার নিয়ে মাঠ ছাড়ল মাশরাফি বাহিনী। এদিন টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশ নয় উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে ২৫৭ রান। পরের ইনিংসে কিউই দলের ব্যাটসম্যানরা দেখেশুনে খেলে ২৫৮ রান করে দলকে নিয়ে যায় জয়ের বন্দরে।

নিজেদের ব্যাটিং শেষে নিউজিল্যান্ডকে আড়াইশর উপর রানের টার্গেট দিয়ে প্রথম উইকেট তুলে নিতে বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হয়েছে সপ্তম ওভারের শেষ বল পর্যন্ত। মুস্তাফিজুর রহমানের স্লোয়ারে সামনের দিকে বল মারতে চাইলেন লুক রঞ্চি। বল আকাশে উঠে মিডঅফে ধরা পড়ল মাহমুদউল্লাহর হাতে। ৩৯ রানে নিউজিল্যান্ডের উদ্বোধনী জুটি ভাঙে। টম ল্যাথামের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নেমে বেশ সতর্ক ব্যাটিং করছিলেন রঞ্চি, বিশেষ করে মুস্তাফিজের ওভারে। বাঁহাতি পেসারের প্রথম ওভারে ২ রান পায় নিউজিল্যান্ড। আর দ্বিতীয় ওভারেই মুস্তাফিজের শিকার হন রঞ্চি। ২৭ বলে ২৭ রান করেন এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। ৪টি চার ও ১টি ছয় ছিল তার ইনিংসে।

এরপর ল্যাথামের সঙ্গে শক্ত জুটি গড়তে ব্যর্থ হন জর্জ ওয়ার্কার। ল্যাথাম ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়ায় ভাঙে ৪১ রানের জুটিটি। মোসাদ্দেক হোসেনের বলে অফসাইডে শট নেওয়ার পর দৌড়ে একটি রান নিতে চেয়েছিলেন কিউই ওপেনার। কিন্তু ননস্ট্রাইকিং থেকে ওয়ার্কার এসে পৌঁছানোর আগেই সাব্বির হোসেনের থ্রোতে মুশফিকুর রহিম বল লাগান স্ট্যাম্পে। টিভি আম্পায়ার দেন আউটের সিদ্ধান্ত। ২৪ বলে ১ ছয়ে ১৭ রান করেছিলেন ওয়ার্কার। ক্রিজ আঁকড়ে পড়ে ছিলেন ল্যাথাম। নিজের অবস্থানটা বেশ শক্ত করছিলেন। তবে তাকে সাজঘরে পাঠিয়ে বাংলাদেশের স্বস্তি ফেরালেন রুবেল হোসেন। ৫৪ রানে নিউজিল্যান্ডের এ ওপেনারের ব্যাটে বল লেগে চলে যায় মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসে। নেইল ব্রুমের সঙ্গে শক্ত জুটি গড়ার আভাস দেওয়া টেলর ২৫ রানে মুস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকার হন।

১৪৭ রানে নিউজিল্যান্ড চতুর্থ উইকেট হারানোর পর ক্রিজে প্রতিরোধ গড়েন নেইল ব্রুম ও জেমস নিশাম। ১২.৩ ওভারে ৮০ রানের সতর্ক জুটি গড়েন তারা দুজন। দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়ার পণ যেন তারা করেছিলেন। কিন্তু রুবেলের বলে ২ রানের আক্ষেপ নিয়ে এলবিডব্লিউ হন ব্রুম (৪৮)।

বল হাতে মাশরাফি শেষদিকে এসে উইকেট পান। প্রথম ৫ ওভারে ৪৮ রান দেওয়া অধিনায়ক নিজের ষষ্ঠ ওভারের শেষ বলে নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় সেরা ইনিংসের মালিক নিশামকে ৫২ রানে আউট করেন তিনি। দুই ওভার ৩ বল বাকি থাকতে মাশরাফির ওভারেই জয়সূচক রান নেন কলিন মুনরো। ১৬ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। অপর প্রান্তে ৫ রানে খেলছিলেন মিচেল স্যান্টনার। ৯ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সফল বোলার মুস্তাফিজ। সমান উইকেট পেয়েছেন রুবেল, ১০ ওভারে ৫৩ রান দেন তিনি।

এর আগে বাংলাদেশ ৯ উইকেটে করে ২৫৭ রান। সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর হাফসেঞ্চুরির পরও খুব একটা আহামরি স্কোরবোর্ড তৈরি করতে পারেনি মাশরাফি মুর্তজার দল। সৌম্যর ব্যাটে এসেছে ইনিংস সেরা ৬১ রান। মুশফিক করেন ৫৫ ও মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে আসে ৫১ রান। এছাড়া দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছান কেবল তামিম ইকবাল (২৩) ও মোসাদ্দেক হোসেন (৪১)। দলীয় স্কোরবোর্ড হতে পারত আরও মজবুত। কিন্তু শেষ ওভারেই হামিশ বেনেটের বলে বাংলাদেশ হারায় ৩ উইকেট।

কিউইদের সবচেয়ে সফল বোলার বেনেট ১০ ওভারে ৩১ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ২টি করে উইকেট পেয়েছেন ইশ সোধি ও জেমস নিশাম। ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচেও টসে হেরেছিল বাংলাদেশ। স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ওই ম্যাচেও শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমেছিলেন তামিম-সৌমরা। যদিও বৃষ্টির কারণে নিজেদের ইনিংসই শেষ করতে পারেনি টাইগাররা। ম্যাচটি তাই পরিত্যক্ত হয়। ওই ম্যাচে একাদশে ছিলেন না নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি। এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে অবশ্য তিনি ফিরেছেন কিউইদের বিপক্ষে।

মাশরাফি ফেরায় একাদশে একটি পরিবর্তন ছিল নিশ্চিত। অধিনায়ক ফিরে আসায় কপাল পুড়েছে পেসার তাসকিন আহমেদের। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের একাদশে বদল এই একটিই। কিউইদের একাদশেও এসেছে একটি পরিবর্তন। অলরাউন্ডার স্কট কুগেলিনের জায়গায় সুযোগ পেয়েছেন বেনেট।

স্লো-ওভার রেটের কারণে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ছিলেন মাশরাফি। যে কারণে শুক্রবার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে পারেননি তিনি। নিষেধাজ্ঞা শেষে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অধিনায়ক হয়েই ফিরেছেন মাশরাফি। আর দল থেকে বাদ পড়েছেন তাসকিন আহমেদ।

এর আগে আয়ার‌ল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে