গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সঙ্কুচিত করা হয়েছে : রিজভী

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২০ মে ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ২০ মে ২০১৭, ০০:২৬ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিদেশ ভ্রমণে সাংবাদিকদের ওপর নজরদারির নির্দেশনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। সরকারের এই আচরণকে বাকশালেরই বহির্প্রকাশ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে স্বাধীনতা ফোরাম আয়োজিত মানববন্ধনে রিজভী বলেছেন, সাংবাদিক ও গণমাধ্যম গণতন্ত্রের একটি মূলভিত্তি। তাদের স্বাধীনতাকে আজকে বাংলাদেশে সংকুচিত করা হয়েছে। আজকে সত্য উচ্চারণ বন্ধ ও মিডিয়ার ওপর স্বঘোষিত নিয়ন্ত্রণ জারি করেছে। এখন তাদের চলাচলের ওপর নজদারি করছে। এটা কোনো গণতান্ত্রিক সরকার করে না। বিদেশ ভ্রমণে সাংবাদিকদের ওপর নজরদারির নির্দেশনা একদলীয় সরকারের বাকশালী আচরণের বহির্প্রকাশ।

গত ১৭ মে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বাংলাদেশের মিশনগুলোয় একটি সার্কুলার পাঠানো হয়েছে। বিদেশে গিয়ে সাংবাদিকরা দেশের স্বার্থবিরোধী কোনো তৎপরতায় লিপ্ত আছে কিনা সে বিষয়ে নজরদারির নির্দেশ দেওয়া হয় ওই সার্কুলারে।

রিজভী দাবি করেন, সরকার বিএনপিকে ভয় পায় বলেই নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। তারা আতঙ্কে আছে, কখন কোন ফাঁক দিয়ে বেরিয়ে পড়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিশাল ঢল নামে। এত হত্যা করছে, এত গুম করছে, এত কারাগারে নিচ্ছে, এরপরও বর্তমান সরকারের আতঙ্ক কাটছে না। আসলে অন্যায় বা অবৈধ কর্মকা- কখনো চাপা দেওয়া যায় না।

তিনি বলেন, আজ দেশে দুঃশাসনের মধ্যেও কেউ কেউ প্রতিবাদ করছেন। যেমন প্রধান বিচারপতি। তিনি বলছেনÑ শাসন বিভাগ বিচার বিভাগের ওপর হস্তক্ষেপ করছে। প্রধান বিচারপতি যখন এই হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে কথা বলেন, তখন তাদের গায়ে জ্বালা ধরে যায়। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু ও যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনসহ দলের কারাবন্দি নেতাদের অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানান রিজভী আহমেদ।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আবু নাসের মো. রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির নেতা শিরিন সুলতানা, এ বি এম মোশাররফ হোসেন, আবদুস সালাম আজাদ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে