জেনোসাইড অ্যান্ড জাস্টিস সম্মেলন শুরু

গণহত্যার বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তোলার আহ্বান

  আমাদের সময় ডেস্ক

২০ মে ২০১৭, ০০:৫৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

‘আর কখনো কোথাও গণহত্যা নয়’Ñ এই সেøাগানে গতকাল শুক্রবার ঢাকায় শুরু হয়েছে ‘বাংলাদেশ জেনোসাইড অ্যান্ড জাস্টিস’ আন্তর্জাতিক সম্মেলন। এ নিয়ে পঞ্চমবারের মতো এ সম্মেলনের আয়োজন করল মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। গতকাল বিকালে আগারগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের নতুন ভবনে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক, জিয়াউদ্দিন তারেক আলী, গণহত্যার বিচার বিষয়ে গবেষক যুক্তরাষ্ট্রের অধ্যাপক আলেকজান্ডার হিল্টন, আর্জেন্টিনার বিচারক কার্লোস রোজান্সকি এবং আন্তর্জাতিক আর্কাইভ কাউন্সিলের সদস্য ড. ট্রডি এইচ পিটারসন। তিন দিনের এ সম্মেলনে ১২টি দেশের বিশেষজ্ঞসহ ৬৪ জন প্রতিনিধি অংশ নিচ্ছেন।
সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী বলেন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত পাকিস্তান দখলদার বাহিনীর এ দেশীয় দোসরদের বিচারের দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের ঘোষণা দেন। নির্বাচনের বিপুল বিজয় অর্জনের পর ২০১০ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। যুগোসøাভিয়া, রুয়ান্ডাসহ অন্য দেশে গণহত্যার বিচারের দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে সম্পূর্ণ স্বচ্ছ আইনি প্রক্রিয়ায় একাত্তরের গণহত্যায় জড়িতদের বিচার করছেন ট্রাইব্যুনাল। মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশে গণহত্যার বিচার সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধাপরাধবিষয়ক দূত স্টিফেন জে র‌্যাপ ২০১৪ সালে ঢাকায় এসে এই বিচার সম্পূর্ণ রাজনৈতিক চাপমুক্ত ও হুমকিমুক্ত পরিবেশে হচ্ছে বলে বর্ণনা করেন। এই বিচারকার্য একটি ভালো দৃষ্টান্ত এবং তাতে যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে বলেও জানান তিনি।
দক্ষিণ এশিয়া গণতান্ত্রিক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা পাওলো কাসাকা বলেছেন, তিনি নীতিগতভাবে মৃত্যুদ-ের বিরুদ্ধে, কিন্তু অপরাধীদের অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় আইনের আওতায় সর্বোচ্চ সাজা হলে অবশ্যই এই সাজার পক্ষে তার অবস্থান ইতিবাচক।
সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন আজ সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত তিনটি সেশন চলবে।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে