চুলের যতেœ তেল

  সিঁথি সীমিতা

২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চুল রুক্ষ হয়ে উঠছে বা পড়ে যাচ্ছে, এমন সমস্যায় সবাই ভোগেন একটু-আধটু। রূপবিশেষজ্ঞরা বলছেন চুলের ক্ষতি হয় মূলত সঠিক খাদ্যাভ্যাস আর অযতেœর কারণে। যান্ত্রিক কর্মব্যস্ত জীবনে অনেকেই ঠিকঠাক চুলের যতœ নিতে পারেন না। খুব ভালোভাবে যতœ নেওয়ার উপকরণ কেনাকাটা করাও সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তবে একটি বিষয় অস্বীকার করার উপায় নেই যে, সবার হাতের কাছেই নারকেল তেল অন্তত থাকে। যুগ যুগ ধরে বাঙালি নারীরা চুলের যতেœ, চুলের বাহারে ব্যবহার করে আসছেন নারকেলের তেল।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন এই তেল শুধু চুলকে কোমল ও ঝলমলেই করে না, এর প্রয়োজনীয় পুষ্টিও জোগায়। চুল ফেটে যাওয়াসহ চুলের ক্ষয় রোধ করে। ধুলো-ময়লা থেকে চুলকে রক্ষা করে নারকেল তেল। চুল শক্ত, ঝকঝকে ও স্বাস্থ্যবান রাখতে নারকেল তেলের বিকল্প মেলা ভার। তবে কি রোজ লাগাতে হবে? না, তা জরুরি নয়। তবে চুল স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ও ঝলমলে রাখার জন্য সপ্তাহে অন্তত একদিন চুলের গোড়ায় এবং পুরো চুলে তেল লাগাতেই হবে। চুল শুষ্ক ও ভঙ্গুর হলে দুদিন পর পর তেল ম্যাসাজ করা ভালো। তেল দিয়ে ১ ঘণ্টার মতো রেখেই চুল শ্যাম্পু করে ফেলতে পারেন। যদি খুব তৈলাক্ত চুল হয়, তবে এত ঘন ঘন তেল দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

নারকেল তেল মাথার তালুতে ও চুলের গোড়ায় মালিশ করলে খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিছু কিছু ময়লা আছে, যা সহজে পরিষ্কার হয় না। কিন্তু মাথার ত্বক ও চুলে নারকেল তেল দিলে তা সহজে দ্রবীভূত হয়ে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

‘বিন্দিয়া এক্সক্লুসিভ বিউটি কেয়ার’-এর কর্ণধার এবং রূপবিশেষজ্ঞ শারমীন কচি বলেন, বেঁচে থাকতে যেমন খাবার প্রয়োজন, চুলের জন্য প্রয়োজন তেল। শুধু খাবার হলে চলবে না, ভিটামিনসমৃদ্ধ খাবার দিতে হবে। সে জন্য চুলের যতেœ বিভিন্ন তেল ব্যবহার হয় যেমনÑ জলপাইয়ের তেল, কেস্টার অয়েল, তিলের তেল প্রভৃতি। তবে এসবের মধ্যে নারেকল তেল সবচেয়ে হালকা বা ঘনত্ব কম। হালকা হওয়ায় খুব সহজেই মাথার ত্বকে মিশে গিয়ে চুলের গোড়া মজবুত করে এবং এতে প্রচুর ময়েশ্চার আছে। মোট কথা চুলের যতেœ তেলের, বিশেষ করে নারকেল তেলের বিকল্প নেই।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে