পূজার সাজে পাঞ্জাবি

 

২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

 

পূজার আয়োজনে সাজপোশাকে মেয়েদের তুলনায় ছেলেরাও কম যান না। আর তাই তো তাদের জন্য প্রস্তুত ফ্যাশন হাউসগুলো। পূজার কালেকশনে সবার জন্য পাওয়া যাবে বাহারি পাঞ্জাবি। রঙ, নকশায় আর নান্দনিকতায় এবারের পাঞ্জাবির কালেকশন অনেক বর্ণিল। তারই খোঁজ জানাচ্ছেন তাপসী রহমান

এবারের পূজার পাঞ্জাবিতে সবচেয়ে বেশি করা হয়েছে স্ক্রিনপ্রিন্টের কাজ। এ ছাড়া এমব্রয়ডারি, সিকোয়েন্স, হাতের কাজও রয়েছে। স্ক্রিনপ্রিন্টে পূজার মোটিফগুলো ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলা যায়। আর সে কারণেই বেশিরভাগ ফ্যাশন হাউসে স্ক্রিন প্রিন্টের ব্যবহার বেশি হয়েছে বলে জানালেন ডিজাইনার খালিদ মাহমুদ খান। কে-ক্রাফটের পূজার পাঞ্জাবির মূল বিষয় হলো কান্তজির মন্দিরের নানা ফর্ম। কোনো পাঞ্জাবিতে দেখা যাবে মন্দিরের দরজা, কোনোটিতে পোড়ামাটির নকশা করা পিলার আবার কোনোটিতে মন্দিরের নান্দনিক নকশার প্রতিচ্ছবি। বাবা-ছেলে বা পরিবারের অন্য সদস্যের জন্য এক রকম এই থিমেটিক পাঞ্জাবি পেতে চাইলে যেতে পারেন কে-ক্রাফটে। সাদা, লালসহ উজ্জ্বল রঙের এই পাঞ্জাবিগুলো মিলবে বারোশ থেকে বাইশ শ’ টাকার মধ্যে। ফ্যাশন হাউস রঙ বাংলাদেশে পাওয়া যাবে লাল, সাদা, হলুদ, কমলাসহ বিভিন্ন কালারফুল পাঞ্জাবি। পাঞ্জাবির নকশায় স্ক্রিনপ্রিন্টের কাজ বেশি হলেও এমব্রয়ডারি ও অন্যান্য নকশাও করা হয়েছে। ডিজাইনার সৌমিক দাস জানালেন, গরমের কথা চিন্তা করে সুতি, এন্ডি আর তাঁতের কাপড়ে আমরা পাঞ্জাবিগুলো তৈরি করেছি। হিন্দু ধর্মের নানা ফর্মসহ ফ্লোরাল মোটিফে করা হয়েছে তাদের পাঞ্জাবিগুলো। জিওমেট্রিক ফর্ম নিয়ে বেশি কাজ করেছে তারুণ্যের ব্র্যান্ডশপ লা রিভ। কাটিং আর প্যাটার্ন নিয়েও করা হয়েছে নানারকম পরীক্ষা। ডিজাইনার বিপ্লব বিপ্রদাশ বলেন, পূজা আর তারুণ্য এই দুই বিষয় মাথায় রেখে আমরা কাজ করেছি। সাদা, লাল, নীল, কমলা রঙগুলো প্রাধান্য পেয়েছে আমাদের কালেকশনে। লা রিভের পাঞ্জাবিগুলো পেতে পারেন বারোশ নব্বই থেকে চব্বিশ শ’ নব্বইর মধ্যে। ফ্যাশন হাউস আড়ং ঘুরে দেখা গেল ব্লক টাইডাই স্ক্রিনপ্রিন্টের পাশাপাশি হাতের কাজের নকশার প্রাধান্য বেশি তাদের পাঞ্জাবির কালেকশনে। সুতি, সিল্ক, এন্ডি ও তাঁতের কাপড়ের ব্যবহার হয়েছে। বয়স্কদের জন্য সাদার ওপর হাতের কাজের নকশা যেমন আছে, তেমনি সিল্কের ওপর মিহি কাঁথা স্টিচের কাজের পাঞ্জাবিও মিলবে এখানে। ফ্যাশন হাউসগুলো পাঞ্জাবির সঙ্গে মিলিয়ে ধুতি এবং ধুতি সালোয়ার তৈরি করেছে। কে-ক্রাফট, অঞ্জনস, রঙ বাংলাদেশসহ বিভিন্ন হাউসে মিলবে ধুতি। ফ্যাশন হাউস ছাড়াও এলিফেন্ট রোডের দোকানগুলোতে মিলবে ছেলেদের চুড়িদার, নরমাল সালোয়ার আর ধুতি সালোয়ার। তিনশ থেকে এক হাজার টাকায় পাওয়া যাবে এসব সালোয়ার। তাঁতের ও দেশীয় মোটিভের পাঞ্জাবি কিছুটা কম মূল্যে মিলবে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে। নিত্য উপহার, নক্ষত্র, মেঘ, দেশাল, সুইসুতা ছাড়াও একসঙ্গে অনেক দেশীয় ফ্যাশন হাউস পেয়ে যাবেন এখানে। একটু ভিন্নতা আর কিছুটা স্বল্পমূল্য দুইয়ের সমাবেশে এই মার্কেট। আটশ থেকে দুই হাজার টাকায় এখানে পাঞ্জাবি পাবেন। ছয়শ থেকে এক হাজার টাকায় মিলবে তৈরি ধুতি। হাতে সময় থাকলে যেতে পারেন।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে