হালকা পোশাক হালকা সাজ

  অনলাইন ডেস্ক

১৯ এপ্রিল ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রীষ্মের ঝাঁ ঝাঁ রোদ্দুর। সঙ্গে ভ্যাপসা গরম। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাতাসে উড়ছে ধুলো। বাইরে বের হলে গরম, ঘাম আর ধুলোবালিতে অস্থির হয়ে উঠতে হয়। এ সময় হালকা সাজ, হালকা পোশাকই আরামের। কেমন হবে এ সময়ের হালকা সাজপোশাক, চলুন জেনে নেওয়া যাক। লিখেছেনÑ রওনক বিথী

হ প্রথম পৃষ্ঠার পর

‘রোদ-গরমে বেশ অস্বস্তিকর একটা পরিস্থিতি। স্বস্তিতে থাকতে হলে এ সময় হালকা সাজপোশাক বেছে নিন। হালকা মেকআপ আপনার ত্বককে প্রচ- রোদের আবহ থেকে রক্ষা করতে পারে, যদি সেটা ঠিকঠাক নিতে পারেন’Ñ কথাগুলো বলছিলেন আয়ুর্বেদিক রূপবিশেষজ্ঞ ও পুষ্টিবিদ রাহিমা সুলতানা রীতা। তিনি আরও বলেন, এই সময়ের প্রসাধন অয়েল ফ্রি হওয়া উচিত। পাশাপাশি সচেতন হতে হবে সানস্ক্রিন ব্যবহারের প্রতিও। যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা ওয়াটারবেইজ সানস্ক্রিন বেছে নিন। সেই সঙ্গে বাইরের ধুলোবালি থেকে ঘরে ফিরে ত্বক ভালোমতো পরিষ্কার করাও খুব জরুরি।

রোদ-গরম যতই তীব্র থাকুক, নানা কাজে ঘরের বাইরে তো যেতেই হয়। এ সময় বাইরে বের হলে হালকা সাজপোশাকই সবচেয়ে আরামের। সাজের ক্ষেত্রে প্রথমেই ফেসওয়াশ দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করে সানস্ক্রিন লোশন বা ক্রিম লাগিয়ে চার থেকে পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করুন। এতে সানস্ক্রিন ত্বকে ভালোমতো মিশে যাবে। এবার ফেসপাউডার বা মিনারেল পাউডার মাখুন। ওয়াটার প্রুফ কাজল ও আইলাইনার লাগিয়ে নিন। রোদে-গরমে মাশকারা গলে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই গরমে এটি এড়িয়ে চলাই ভালো। গরমে দিনের সাজে চোখে শ্যাডো কিংবা গালে ব্লাশন ব্যবহার না করলেই ভালো লাগবে। এর পর পছন্দমতো কোনো রঙের লিপস্টিক লাগিয়ে নিন। গরমে ম্যাট লিপস্টিক দীর্ঘস্থায়ী হবে। রাতের পার্টিতে একটু ভারী মেকআপ না হলেই নয়। সেখানে আপনি পোশাকটা উজ্জ্বল রঙের বেছে নিন। সাজে চমক আনতে সাজাতে পারেন চোখে বা ঠোঁট। সাজের বেইজ দিনের মতো হালকাই রাখুন। পার্টি লুক আনতে ব্যবহার করতে পারেন বিবি ক্রিম। এর পর ফেসপাউডার। পিংক, ব্রাউন টোনের ব্লাশন দিয়ে চোখে লাগিয়ে নিন মানানসই শ্যাডো। গরমে শ্যাডো গলে যাওয়া প্রতিরোধে প্রথমেই প্রাইমার লাগিয়ে নিন। উজ্জ্বল রঙের লিপস্টিক খুব চলছে এখন। ব্যবহার করতে পারেন মেজেন্টা, লাল, চড়া গোলাপি কিংবা বেগুনি রঙের ম্যাট লিপিস্টিক।

কিছুদিন আগেও ফুলহাতা, কলার দেওয়া জামা পরলেও এই গরমে তা মোটেও আরামদায়ক নয়। গরমে পোশাকের ফেব্রিক নির্বাচনেও সতর্ক থাকতে হবে। তবে স্টাইলটাও থাকা চাই। গরমে আরাম পেতে বেছে নিন সুতি কাপড়। পাশাপাশি কামিজ, কুর্তি, টপস পরতে পারেন চায়না কটন, কটন জামদানি, শিপন, তাঁত, খাদি কাপড়েরও। সালোয়ারের জন্য ফাইন কটন, বেক্সি পপলিন কাপড় আরামদায়ক। অঞ্জনসের প্রধান নির্বাহী শাহীন আহম্মেদ বলেন, ‘গরমে সুতি কাপড়ই শ্রেষ্ঠ। জর্জেট, তাঁত, খাদি, জামদানি কাপড়গুলোও এ সময় আরামদায়ক। পোশাক শুধু আরামদায়ক হলেই হবে না, সেটা হতে হবে উপযোগী ডিজাইনেরও। গরমে আঁটসাঁট পোশাক না পরে একটু ঢিলেঢালা পোশাক পরুন। এ সময় ফুলসিøভ, বন্ধ গলা অস্বস্তিকর হতে পারে। আবার চুড়িদারের চেয়ে পালাজ্জ পরলে আরাম পাওয়া যাবে এবং ট্রেন্ডিও। পোশাকের নকশাটাও বেছে নিন হালকা। সালোয়ার-কামিজে সিøভলেস, ঘটি হাতা, ছোট হাতা এ সময়ের জন্য আরামদায়ক। তবে রোদ এড়াতে থ্রি কোয়ার্টার, ক্যাপসিøভ, বেলস্লিভ হাতার পোশাকও পরতে পারেন।’

‘শাড়িও হতে পারে এ সময়ের সঙ্গী। স্টাইল ধরে রাখতে একরঙা সুতি, কোটা কিংবা তাঁতের শাড়ির সঙ্গে পরুন চেক, কুর্শিকাটা লেস বসানো অথবা প্রিন্টের ব্লাউজ। আর যদি গরমে হালকা শাড়িটাকে পার্টি উপযোগী করতে চান তবে জরির কাজের চিকন অথবা চওড়া পাড় বসিয়ে নিতে পারেন’Ñ জানালেন ফ্যাশন ডিজাইনার লিপি খন্দকার। ছেলেরা এই গরমে আরাম পেতে পরতে পারেন টি-শার্ট, ফতুয়া কিংবা সুতি ক্যাজুয়াল শার্ট। সুতি, অ্যান্ডি, খাদি কাপড়ের পোশাক আরামদায়ক হবে। রঙের ক্ষেত্রে গরমে সাদা পোশাক আপনাকে শুধু স্বস্তিই দেবে না, মানসিক প্রশান্তি এনে দেবে অন্যদেরও। সঙ্গে একঘেয়েমি দূর করতে পরতে পারেন চাপা সাদা, হালকা গোলাপি, ঘিয়া, আকাশি, বেগুনি রঙগুলো।

গ্রীষ্মের প্রচ- দাবদাহে শুধু সাজপোশাক নয়, খাবার-দাবারের ব্যাপারেও সচেতন থাকতে হবে। আয়ুর্বেদিক রূপবিশেষজ্ঞ ও পুষ্টিবিদ রাহিমা সুলতানার পরামর্শ হচ্ছে, এ সময় শারীরিক সুস্থতা এবং ত্বকের সুস্থতা দুটোর জন্যই প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন প্রকার তাজা ফলের শরবত, ডাবের পানি, কাটা ফলও খেতে হবে। গরমে বেশি তেলমসলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। বরং মাছের ঝোল, সবজি, সালাদ ইত্যাদি শরীরের জন্য ভালো। গরমে শরীর ঠা-া রাখতে টকদই খুব উপকারী। বাইরের পানি, পানীয় এবং রাস্তার ধারের খোলা খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। বাইরে বের হওয়ার সময় অবশ্যই সঙ্গে ছাতা, সানগ্লাস, স্কার্ফ ও পানির বোতল রাখুন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে