সুস্থ শিশুর জন্য মায়ের সঠিক পরিচর্যা চাই

  রনিতা রায়ান

২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জন্মের পর সন্তানের আকৃতি দেখে রীতিমতো ভয় পেয়ে যায় হালিমা। শিশুর ওজন মাত্র দেড় কেজি। দেখে মনে হয় পাখির ছানা। হবে না কেন! গর্ভবতী অবস্থায় যে তাকে পেটভরে খেতেই দেওয়া হয়নি। হালিমা নিজেও কিশোরী মা। ১৫ বছর বয়সে বিয়ে হয়েছে। এটি তার প্রথম সন্তান। গর্ভবতী অবস্থায় সারাদিন খিদে পেত হালিমার। কিন্তু শাশুড়ি বলত বেশি খেলে সন্তান বড় হয়ে যাবে। তখন প্রসবে নাকি অনেক সমস্যা হবে। গর্ভবতীর খাবার ও যতœ নিয়ে এমন বিভিন্ন কুসংস্কার এখনো বাংলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে প্রচলিত আছে। গর্ভবতী অবস্থায় বেশি খাওয়া মানা, মৃগেল মাছ খাওয়া মানা, শাকসবজি খাওয়া মানা ইত্যাদি বিধিনিষেধের আর শেষ নেই। অথচ গর্ভবতী অবস্থায় সঠিকভাবে খাবার না পেলে এবং যথাযথ পরিচর্যা না পেলে গর্ভস্থ শিশুর পরিপূর্ণ বিকাশ সম্ভব হয় না। মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর অন্যতম কারণও এগুলো। কম ওজনের অপুষ্ট শিশুর মৃত্যুহারও বেশি।

ন্যাশনাল লো বার্থ ওয়েট সার্ভে বাংলাদেশ ২০১৫-এর প্রতিবেদনে জানা যায়, দেশে প্রতিবছর জন্ম নেয় ৩২ লাখ শিশু। এর মধ্যে ২২ দশমিক ২৬ শতাংশই কম ওজন নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। তার মানে প্রতিবছর দেশে ৭ লাখ ১২ হাজার ৩২০ নবজাতক জন্ম নেয় কম ওজন নিয়ে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংজ্ঞা অনুযায়ী, যেসব শিশু আড়াই কেজির কম ওজন নিয়ে জন্ম নেয়, তাদের কম ওজনের নবজাতক বলা হয়। অন্য শিশুর তুলনায় এদের মানসিক বিকাশ কম হওয়ার আশঙ্কা থাকে। প্রাপ্তবয়স্ক হলেও ডায়াবেটিস টাইপ টু, হাইপার টেনশন, কার্ডিওভাসকুলার রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এরা সহজেই ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হতে পারে।

এ প্রসঙ্গে গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. ইশরাত জেবিন বলেন, ‘এসব সমস্যা এড়াতে হলে বাল্যবিয়ে রোধ করতে হবে। কারণ অল্পবয়সী মা সাধারণত কম ওজনের অপুষ্ট শিশুর জন্ম দেয়। গর্ভাবস্থায় মায়ের পরিপূর্ণ যতœ দরকার। বিশ্রাম দিতে হবে মাকে এবং মানসিক প্রশান্তিরও ব্যবস্থা করতে হবে। গর্ভাবস্থায় প্রোটিন, শর্করা, চর্বি, ক্যালসিয়াম, ফলমূল, শাকসবজি প্রয়োজন। স্বাভাবিক অবস্থার চেয়ে গর্ভাবস্থায় মাকে বেশি খাদ্য দিতে হবে।’

একজন সুস্থ মা জন্ম দিতে পারেন একটি সুস্থ শিশুর। তাই সুস্থ ভবিষ্যৎ প্রজন্মের স্বার্থে প্রয়োজন গর্ভবতী এবং প্রসব-পরবর্তী অবস্থায় মায়ের পরিপূর্ণ যতœ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে