আমরাই পারি জোটের বাল্যবিবাহ নিরোধ বিধিমালা পর্যালোচনা

 

৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সাম্প্রতিককালে অতি আলোচিত বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭-এর বিশেষ বিধানে আপত্তি সত্ত্বেও সরকার আইনটি পাস করে। প্রথম পর্যায়ে খসড়া বিধিমালা প্রকাশের পর বিভিন্ন সংগঠনের সুপারিশের ভিত্তিতে মাত্র ১৫ দিন সময় দিয়ে দ্বিতীয় দফায় সরকার মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বাল্যবিবাহ নিরোধ বিধিমালা ২০১৭ (খসড়া) প্রকাশ করে এবং সংশ্লিষ্ট সবার কাছে মতামত আহ্বান করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট গত ২৬ তারিখ মঙ্গলবার ঢাকাস্থ সিরডাপ মিলনায়তনে গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডা (জিএসি) এবং অক্সফামের সহায়তায় ‘ক্রিয়েটিং স্পেস টু টেক অ্যাকশন অন ভায়োলেন্স এগেইন্সট উইমেন অ্যান্ড গার্লস’ প্রকল্পের আওতায় বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ বিধিমালা ২০১৭ (খসড়া) পর্যালোচনা সভা’র আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক বিচারপতি মো. শামসুল হুদা বলেন, বাল্যবিয়ে বন্ধে যে আইন পাস করা হয়েছে তা নারী ও শিশুর স্বার্থ সুরক্ষা করে এমন আইন ও নীতিমালার সঙ্গে সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক। এই আইন মানুষের বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রে বাধার সৃষ্টি করবে। আইনটি সুস্পষ্ট নয় বরং অসম্পূর্ণ; কোন আদালতের কী এখতিয়ার তা বিবেচনায় না রেখেই আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে। আইন অসম্পূর্ণ, অস্পষ্ট হলে তা কখনো বিধিমালা দিয়ে সম্পূর্ণ করা যায় না। তাই এই আইন পরিবর্তন করতে হবে, সংস্কার করতে হবে।

সমাপনী বক্তব্যে আমরাই পারি জোটের চেয়ারপারসন সুলতানা কামাল বলেন, সংবিধান অনুযায়ী আইনের চোখে সব নাগরিক সমান। তাই সবার কথা বিবেচনায় নিয়ে আইন প্রণয়ন করতে হবে। গরিব মানুষ বলে তাদের ওপর অসম্পূর্ণ ও অগ্রহণযোগ্য একটা আইন চাপিয়ে দিয়ে তাদের আরও প্রান্তিক করা আমরা মেনে নিতে পারি না। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ নিয়ে আমরা খুবই বিব্রত, ভীষণভাবে ক্ষুব্ধ। আমরা কোনোভাবেই এই আইনের স্পিরিটের সঙ্গে একমত নই, আমরা এই আইনটিকে সমর্থন করি না। আমরা এই আইন বদলানোর জন্য, বিশেষ বিধানকে বাতিল করার আন্দোলন চালিয়ে যাব। শিশুর বিয়ে দেওয়াটাকে সর্বোত্তম স্বার্থ বা মঙ্গল হিসেবে মেনে নেওয়া যায় না। আমরাই পারি জোটের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই, বাল্যবিবাহ আইনের বিশেষ বিধান বাতিল করুন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন আয়শা সিদ্দীকা, জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা ঢাকা ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল, প্রসিকিউটর, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল, বাংলাদেশ; অ্যাডভোকেট রুমা সুলতানা, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন; অ্যাডভোকেট ফরিদা ইয়াসমীন, নির্বাহী কমিটির সদস্য, আমরাই পারি জোট; আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোটের জাতীয় সমন্বয়কারী জিনাত আরা হক।

‘আমরাই পারি’ বিশ্বের ১৫টি দেশে পরিচালিত একটি গ্লোবাল কার্যক্রম। বাংলাদেশে আমরাই পারি কার্যক্রম পারিবারিক নির্যাতন বন্ধে ২০০৪ সাল থেকে ৫৫টি জেলায় কাজ করছে। নারীদের ওপর নির্যাতন বন্ধে আমরাই পারি কার্যক্রম মানুষের মানসিকতা ও আচরণ পরিবর্তনের জন্য কাজ করে আসছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে