মাশরাফির রংপুর চ্যাম্পিয়ন

  সুসান্ত উৎসব

১৩ ডিসেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৩:৩৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস- ক্রিকেটীয় এ প্রবাদটিকে মিথ্যা বলে প্রমাণ করতে পারলেন না সাকিব আল হাসান। ব্যক্তিগত ২২ রানে ক্রিস গেইলের ক্যাচ মিস করেছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের অধিনায়কই। ওই ক্যাচ মিসটাই সাকিবদের শিরোপা ধরে রাখার স্বপ্নকে ধূসর করে দেয়। কেননা ‘জীবন’ পাওয়া গেইলের বিধ্বংসী ইনিংসটাই গড়ে দিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস ও রংপুর রাইডার্সের মধ্যকার শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচের ভাগ্য। ম্যাচশেষে তা স্বীকার করেছেন সাকিব নিজেও। সংবাদ সম্মেলনে ঢাকার অধিনায়ক হারের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেছেন, ‘আমার ক্যাচ মিসটার কথাই বলব।’ এ ছাড়া বোলিং ভালো হয়নি বলেও জানিয়েছেন তিনি। বিশেষ করে গেইলের ক্ষেত্রে ভালো জায়গায় বল ফেলতে না পারার কথা বলেছেন সাকিব।
বিপিএল পেল নতুন চ্যাম্পিয়ন। গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে সাকিবের ঢাকাকে ৫৭ রানে হারিয়ে পঞ্চম আসরের শিরোপা জিতে নিয়েছে মাশরাফির রংপুর। ম্যাচসেরা গেইল। সবচেয়ে বেশি রান (১১ ম্যাচে ৪৮৫) করায় টুর্নামেন্ট সেরাও নির্বাচিত হয়েছেন রংপুরের এই ওপেনার।
শিরোপা নির্ধারণী মঞ্চে আরও একবার জ্বলে উঠলেন ক্রিস গেইল। ঢাকার বোলারদের বিপক্ষে এদিন রীতিমতো তা-ব চালিয়েছেন রংপুরের ওপেনার। শতরানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলার পথে রেকর্ড বই ওলট-পালট করেছেন তিনি। রংপুরের শিরোপা জয়ের নায়ক গেইলই। ম্যাচশেষের সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে টি-টোয়েন্টির সেরা ব্যাটসম্যান বলে দাবি করেছেন তিনি। অবশ্য এটিও বলেছেন, তিনি যখন ব্যাটিংয়ে নামেন তখন কতগুলো বাউন্ডারি বা ছক্কা হাঁকাবেন কিংবা কত রান করবেন, এমন কোনো পরিকল্পনা তার মাথায় থাকে না। তিনি নিজের স্বাভাবিক খেলাটাই খেলেন।   
সাকিব নয়, শেষ হাসি হাসলেন মাশরাফি। তার নেতৃত্বেই প্রথমবার শিরোপা জয়ের স্বাদ পেল রংপুর। তবে এবারই প্রথম নয়, ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ এর আগে আরও তিনবার উঁচিয়ে ধরেছেন বিপিএল শিরোপা। তার নেতৃত্বে দুবার ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস এবং একবার কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফির এটি চতুর্থ শিরোপা জয়। মাশরাফি বলেন, অবশ্যই ভালো লাগছে।  
গত আসরের চ্যাম্পিয়ন ছিল ঢাকা। এবারও শিরোপা জয়ের রেসে এগিয়ে ছিল দলটি। তবে ফাইনালে নিজেদের মেলে ধরতে পারলেন না সাকিব, আফ্রিদি, লুইস, নারিনরা। তাই তো ২০৬ রান তাড়ায় ১৪৯/৯-এর বেশি তুলতে পারেনি ঢাকা। গেইলের ব্যক্তিগত (১৪৬*) সংগ্রহের চেয়ে ঢাকার ব্যাটসম্যানরা মাত্র ৩ রান বেশি তুলতে পেরেছেন। তাতে সর্বোচ্চ জহুরুল ইসলামের ৫০।
মিরপুরে ঢাকা-রংপুরের মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচটি ছিল গেইলময়। রংপুর যে ১ উইকেটে ২০৬ রানের পুঁজি পায়, তাতে ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং দানবের অবদান ১৪৬*। তার ব্যাটেই বিপিএলের পঞ্চম আসর দেখেছিল প্রথম সেঞ্চুরি। খুলনার পর এবার ঢাকার বিপক্ষে তুলে নিলেন নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। এটি টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে গেইলের ২০তম। তার ৬৯ বলের বিধ্বংসী ইনিংসটি সাজানো ছিল পাঁচ চার ও রেকর্ড ১৮ ছক্কায়।
এদিন শুরু থেকে ব্যাটে ঝড় তোলেন গেইল। ৫৭ বলে তিন অঙ্কের ম্যাজিকফিগার স্পর্শ করেন তিনি। এবারের বিপিএলে এটি তৃতীয় সেঞ্চুরি। দ্বিতীয় উইকেটে ম্যাককালামের সঙ্গে দলীয় স্কোরকার্ডে ২০১ রান জমা করেন তিনি। এদিন বেশ কিছু রেকর্ড ভেঙেছেন, আবার গড়েছেনও। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ছুঁয়েছেন ১১ হাজার রানের মাইলফলক। ৪৩ বলে ৫১ রানে অপরাজিত ছিলেন ম্যাককালাম।
শিরোপা ধরে রাখার ম্যাচে ঢাকার ব্যাটসম্যানরা খুব বেশি সুবিধা করতে পারেননি। রংপুরের বোলারদের সামনে অসহায় আত্মসমর্পণই করেছেন লুইস, সাকিব, আফ্রিদিরা। বড় রান তাড়ায় ঢাকার শুরুটাই হয়েছিল বাজেভাবে। দলীয় ১ রানে মেহেদী মারুফের উইকেট শিকার করে রংপুরকে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন মাশরাফি। এর পর স্কোরকার্ডে কোনো রান জমা না হতেই ডেনলির উইকেট হারায় ঢাকা। ২৯ রানের মধ্য লুইস ও পোলার্ডের উইকেট হারালে শিরোপা ধরে রাখার স্বপ্ন একপ্রকার বিবর্ণ হয়ে যায় দলটির। তবে পঞ্চম উইকেটে ৪২ রানের জুটি গড়ে দলের রানের চাকা সচল রেখেছিলেন সাকিব ও জহুরুল। এর পর আবার ছন্দপতন। সাকিবকে (২৬) আউট করে এ জুটি ভাঙেন নাজমুল। ছয়ে নামা জহুরুল চেষ্টা করলেও দলকে জয়ী করে মাঠ ছাড়তে পারেননি। ৩৮ বলে ৫০ রান করেন তিনি। শেষের দিকে নারিন ও আবু হায়দারের ব্যাটে শুধু  হারের ব্যবধানই কমাতে পেরেছে সাকিবের ঢাকা।
এদিন গেইল যেসব রেকর্ড করেছেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছক্কার বিশ্বরেকর্ড। আইপিএলে অপরাজিত ১৭৫ রানের ইনিংসে ছিল ১৭টি ছক্কা। এদিন তিনি মেরেছেন ১৮টি। বিপিএলে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস খেলার পথে নিজেকে ছাড়িয়ে গেছেন নিজেই। খুলনার বিপক্ষে তার আগেরটি ছিল অপরাজিত ১২৬ রান, এবার অপরাজিত ১৪৬। বিপিএলের পঞ্চম আসরের ফাইনালে এবারই প্রথম সেঞ্চুরি করলেন কোনো ব্যাটসম্যান। দ্বিতীয় উইকেটে ম্যাককালামের সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন ২০১ রানের জুটি গড়েছেন, যা বিপিএল এই প্রথম দেখল। আগেরটি ছিল শাহরিয়ার নাফিস ও লু ভিনসেন্টের ১৯৭ রান।
মিরপুরের আকাশে আতশবাজি ফুটল। নতুন চ্যাম্পিয়ন রংপুরকে বরণ করে নেওয়ার মধ্য দিয়ে পর্দা নামল বিপিএলের পঞ্চম আসরের।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
রংপুর : ২০ ওভারে ২০৬/১ (গেইল ১৪৬*, ম্যাককালাম ৫১*; সাকিব ১/২৬)। ঢাকা : ২০ ওভারে ১৪৯/৯ ( লুইস ১৫, সাকিব ২৬, জহুরুল ৫০, নারিন ১৪; সোহাগ গাজী ২/৩২, উদানা ২/২৫, নাজমুল ২/৮)।
ফল : রংপুর ৫৭ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা: ক্রিস গেইল। টুর্নামেন্ট সেরা: ক্রিস গেইল।  

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে