ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধন

ক্ষমতা চলে যাবে গুটিকয়েক ব্যক্তির হাতে : ফরাসউদ্দিন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:১৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

সম্প্রতি জাতীয় সংসদ অধিবেশনে ব্যাংক কোম্পানি (সংশোধন) বিল ২০১৭ উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এর বিরোধিতা হলেও কণ্ঠভোটে তা নাকোচ হয়ে যায়। পরে বিলটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। এ আইনের বিরোধিতা করছেন অর্থনীতিবিদরাও। তারা মনে করেন, সংশোধিত আইনের মাধ্যমে বেসরকারি ব্যাংকগুলো ধ্বংস হয়ে যাবে। এর পাশাপাশি ‘ফ্যামিলি ব্যাংকিং’ গড়ে উঠবে।

বর্তমান আইনে এক ব্যক্তি দুই মেয়াদে ৬ বছর এবং একই পরিবার থেকে সর্বোচ্চ দুইজন পরিচালক হতে পারেন। অথচ সংশোধিত আইনে একই পরিবার থেকে ব্যাংকে ৪ জন পরিচালক এবং টানা ৯ বছর ওই পদে থাকার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু এমনটা করলে ব্যাংকিং খাতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন। নিজের মতামত দিয়ে আমাদের সময়কে তিনি বলেন, এই আইন আমরা সমর্থন করতে পারছি না। এতে অর্থনৈতিক ক্ষমতা কয়েক ব্যক্তি ও পরিবারের হাতে কেন্দ্রীভূত হবে। বাংলাদেশ জন্মের সময় ও বর্তমান সরকারের লক্ষ্য কল্যাণমূলক রাষ্ট্র গঠন করা। ব্যাংক ও বীমা এ দুটি খাত কয়েক ব্যক্তির কাছে চলে গেলে জনকল্যাণ ব্যাহত হবে।

ফরাসউদ্দিন বলেন, আগে এক পরিবারের একজন পরিচালক হওয়ার সুযোগ ছিল। সেটি বাড়িয়ে পরে দুইজন করা হয়। এখন চারজন করা হচ্ছে। আমি বিনয়ের সঙ্গে বলতে চাই, একজন পরিচালকের মেয়াদ ৬ বছরই যথেষ্ট, ৯ বছর অনেক লম্বা সময়। কারণ নতুন নেতৃত্ব আসতে হবে। এক ব্যক্তির মাধ্যমে অগ্রগতি ও প্রগতি সম্ভব নয়। তবে আইনের ভালো দিক হচ্ছে পরিচালকদের বিনিয়োগ বাড়ানোর বিষয়টি। কিন্তু সেটি হবে না। তিনি বলেন, আইনটি চূড়ান্ত করার আগে বিষয়গুলো আবার পর্যালোচনা করতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক ও ব্যাংক বিষয়ে অভিজ্ঞদের মতামত নেওয়া দরকার।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে