চট্টগ্রামে মহাসমাবেশ

৫০ লাখ হেফাজতকর্মী জিহাদের জন্য প্রস্তুত

  চট্টগ্রাম ব্যুরো

০৭ অক্টোবর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সরকার যদি অং সান সু চির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়, তা হলে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর পরামর্শক্রমে মিয়ানমারের জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে জিহাদের জন্য ৫০ লাখ হেফাজতকর্মী প্রস্তুত রয়েছেন। গতকাল শুক্রবার বাদ জুমা চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা বন্ধ, রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব ও শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করে আরাকানে ফিরিয়ে নেওয়ার দাবিতে মহাসমাবেশে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব হাফেজ জুনায়েদ বাবুনগরী এ ঘোষণা দেন। মহাসমাবেশে সভাপতিত্ব করেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী। তিনি কোনো বক্তব্য না দিলেও সব শেষে মোনাজাত পরিচালনা করেন। মোনাজাতে তিনি রোহিঙ্গা মুসলিমদের নাস্তিক বানানোর পাঁয়তারা চলছে বলে উল্লেখ করেন। রোহিঙ্গা মুসলিমদের মুক্তি কামনাসহ সারা বিশ্বের মুসলিমদেরও মুক্তি কামনা করেন তিনি।

হেফাজতে ইসলামের হাফেজ জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, সু চি একজন আর্ন্তজাতিক সন্ত্রাসী। মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর নৃশংস গণহত্যা পরিচালনার দায়ে এবং মানবতারবিরোধী অপরাধে থেইন সেইন সরকার ও অং সান সু চিকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে হবে। সরকারের কাছে আমাদের দাবি, সু চির বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করুন। আপনাদের সঙ্গে সারা দেশের জনগণ আছে। তাদের সঙ্গে আমাদের সব ধরনের সম্পর্ক বাতিল করতে হবে। তাদের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে কাজ হবে না। তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ করতে হবে। জিহাদ ছাড়া এ সমস্যা সমাধান হবে না।

হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, মিয়ানমারের সরকার ও সে দেশের বৌদ্ধদের কাছে মানবিকতা বলতে কিছুই নেই। তারা রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর বর্বরতম হত্যাকা- চালিয়ে মানবাধিকার ভূলুণ্ঠিত করেছে। মানবতার শত্রু মিয়ানমারের জালেম সরকারের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মুফতি মইনুদ্দিন রুহী বলেন, বাংলাদেশসহ প্রতিটি মুসলিম রাষ্ট্রকে আর্তমানবতার স্বার্থে জাতিসংঘের ‘শরণার্থী পুনর্বাসন আইন’ অনুযায়ী বাস্তু ও রাষ্ট্রহারা এবং সাগরে ভাসমান অসহায় রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা; রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে মিয়ানমার সরকারকে চাপ প্রয়োগপূর্বক কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়াসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেও রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার রক্ষায় আওয়াজ তুলতে হবে। প্রয়োজনে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করতে হবে।

মহাসমাবেশে যুগ্ম মহাসচিব জুনাইদ আল হামিদ, নায়েবে আমির আবদুল মালেক হালিম, নায়েবে আমির হাফেজ আতা উল্লাহ, যুগ্ম মহাসচিব সাজেদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হাসনাত আমিনি, আজিজুলক হক ইসলামাবাদী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে