করের আওতা বাড়াতে বিশেষ নজর

  আবু আলী

১৯ জুন ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৯ জুন ২০১৭, ০০:২৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজস্ব আদায় নয়, আহরণে মনোযোগী হয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এ ছাড়া করের বোঝা বৃদ্ধি নয়; করের আওতা বাড়াতে বিশেষ নজর এনবিআরের। চলতি অর্থবছরে প্রতিষ্ঠানটির এমন কর্মকা-ে খুশি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বাজেট বক্ততায় এ বিষয়ে তিনি বলেছেন, গত বাজেটে আয়কর রিটার্ন দাখিকারীর সংখ্যা ১৫ লাখ এবং নিবন্ধন ২৫ লাখে উন্নীত করার ঘোষণা দিয়েছিলাম। ইতোমধ্যে দুটি লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য কালিপদ হালদার আমাদের সময়কে বলেন, নতুন করদাতা বাড়াতে এনবিআর উদ্যোগ নিয়েছে। আর করদাতাদেরও ব্যাপক সাড়া রয়েছে। ফলে আগামীতে এ ধারা অব্যাহত থাকবে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী করের বোঝা না বাড়িয়ে করের আওতা বাড়ানোর নির্দেশনা দিয়েছেন এনবিআরকে। আর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে কাজ করছে এনবিআর। পাশাপাশি বর্তমান করদাতাদের সঙ্গে সৌহার্দপূর্ণ নিবিড় যোগাযোগ রাখছে প্রতিষ্ঠানটি।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, করজাল বিস্তারে চাকরিজীবীদের বাধ্যতামূলক ই-টিআইএনের আওতায় আনা হচ্ছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা, প্রশাসনিক ও তদারকির পর্যায়ে চাকরিজীবীদের ই-টিআইএন নিতে হবে। তবে করযোগ্য আয় না থাকলে রিটার্ন জমা দিতে হবে না।

অন্যদিকে সরকারি চাকরিজীবীদের মধ্যে যাদের মূল বেতন ১৬ হাজার টাকার বেশি, তাদের অবশ্যই ই-টিআইএন নিয়ে রিটার্ন জমা দিতে হবে।

এ ছাড়া করভীতি দূর করতে এনবিআরে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে করবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে। করসেবার পরিধিও বাড়িয়েছে এনবিআর। বিশেষ করে আয়কর মেলা, আয়কর সপ্তাহ এবং আয়কর দিবসে করদাতাদের ব্যাপক সেবা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শ্রেণি বিভাজন করে সেবা দেওয়া হচ্ছে।

করদাতাদের উদ্বুদ্ধ করার প্রয়াস আগামীতে অব্যাহত থাকছে। চলতি অর্থবছরে ৩৭০ সর্বোচ্চ আয়করদাতা এবং ১৪৭ দীর্ঘমেয়াদি আয়করদাতাসহ ৫১৭ করদাতাকে সম্মাননা দিয়েছে এনবিআর। সৎ করদাতাদের উৎসাহ দিতে এবং নতুন নতুন করদাতাকে করের আওতায় আনার লক্ষ্যে ট্যাক্স কার্ডের সম্প্রসারণ করা হয়েছে। এ বছর বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ১৪১টি সম্মাননা কার্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া দীর্ঘ সময় কোনো পরিবারের সব সদস্য কর দিলে সে পরিবারকে ‘কর বাহাদুর’ ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী।

জানা গেছে, করদাতাদের সঙ্গে কর কর্মকর্তাদের নিবিড় সম্পর্কোন্নয়নে উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর। এ জন্য বকেয়া রাজস্ব আহরণে ‘রাজস্ব হালখাতা’ কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া রাজস্ব আহরণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাজের গুণগতমান বৃদ্ধির জন্য বিসিএস কর একাডেমি এবং কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট একাডেমির সক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে। প্রথমবারের মতো পরিচালনা পর্ষদও গঠন করা হয়েছে।

নিবন্ধিত করদাতা ২৯ লাখ ছাড়িয়েছে : দেশে এখন নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যা ২৯ লাখ। গত সপ্তাহে এই মাইলফলক স্পর্শ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। তা ছাড়া প্রতিদিন গড়ে ছয় থেকে সাত হাজার নতুন করদাতা করজালের আওতায় আসছেন। ফলে এনবিআর আশা করছে, চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছর শেষে ই-টিআইএনধারীর (ইলেক্ট্রনিক কর শনাক্তকারী নম্বর) সংখ্যা ৩০ লাখে উন্নীত হবে। এনবিআর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান নতুন করদাতা খুঁজে বের করতে প্রত্যেক করাঞ্চলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ মনোযোগী হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া নতুন করদাতা যুক্ত করতে শহরের পাশাপাশি উপজেলা পর্যায়েও কার্যক্রম চালানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে