প্রধানমন্ত্রীকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট রেপ্লিকা দেওয়া হবে আজ

  শাহিদ বাপ্পি

১৭ এপ্রিল ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৭ এপ্রিল ২০১৭, ০৯:১৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

সরকার চলতি বছরের ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করতে যাচ্ছে। আজ সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ স্যাটেলাইটের রেপ্লিকা হস্তান্তর করবে টেলিযোগাযোগ বিভাগ।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, ইতোমধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট লঞ্চিং প্রজেক্টের ওপর আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন্স (আইটিইউ) থেকে আইটিইউ টেলিকম ওয়ার্ল্ড অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে। পরবর্তীতে মন্ত্রিপরিষদ সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এ সাফল্য অবহিত করে সনদ অর্পণ করা হয়েছে। ওই সময় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ১-এর রেপ্লিকা দেখতে চেয়েছেন। সে অনুযায়ী আজ তা প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়া হবে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করা হবে। সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে চলছে। এ ছাড়া দেশের প্রথম উপগ্রহ পরিচালনার জন্য বঙ্গবন্ধু কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট বাংলাদেশ লিমিটেড (বিসিএসবি) নামে একটি কোম্পানি গঠনের কাজ চলছে। ভবিষ্যতে এই কোম্পানির মাধ্যমে একাধিক স্যাটেলাইট পরিচালনা করবে। কোম্পানি পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষ জনবল নিয়োগ করার প্রস্তুতি চলছে।

তারানা হালিম আরও বলেন, গত জানুয়ারি মাসে স্যাটেলাইট টিম এসপিআই ও থ্যালেসের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গাজীপুরের প্রাইমারি গ্রাউন্ড স্টেশনের নির্মাণকাজ পর্যবেক্ষণের জন্য পরিদর্শন করেছে। গাজীপুর ও বেতবুনিয়াস্থ দুটি গ্রাউন্ড কন্ট্রোল স্টেশনের নকশা অনুযায়ী আর্থফিলিং, বাউন্ডারি ওয়ালের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। মূল ভবনের দ্বিতীয় তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজও শেষ। এ ছাড়া ডরমেটরি বিল্ডিংয়ের ফিনিশিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে এবং ইউটিলিটি বিল্ডিংয়ের নির্মাণ কাজ চলছে।

প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) সূত্রে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের ফলে বর্তমানে বাংলাদেশ বিদেশি স্যাটেলাইটের পেছনে যে খরচ হচ্ছে, তা সাশ্রয় হবে। পাশাপাশি এ স্যাটেলাইট ভাড়া দিয়ে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রাও আয় করতে পারবে বাংলাদেশ। এ প্রকল্পের জন্য আমরা এখন যে বিনিয়োগ করছি তা ৮ বছরের মধ্যে উঠে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। এর পর আমরা লাভের দিকে যাব।

দুর্যোগপ্রবণ বাংলাদেশে নিরবচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ভূমিকা রাখবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। এটি উৎক্ষেপিত হলে বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া ছাড়াই প্রত্যন্ত অঞ্চলে অনেক কম মূল্যে সম্প্রচার সেবা দেওয়া সম্ভব হবে। এ ছাড়া টেলিমেডিসিন, ই-লার্নিং, ই-গবেষণা, ভিডিও কনফারেন্স, প্রতিরক্ষা ও দুর্যোগ অবস্থায় জরুরি যোগাযোগের ক্ষেত্রেও অবদান রাখবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ৪০টি ট্রান্সপন্ডার ক্যাপাসিটি থাকবে। এর মধ্যে ২০টি ট্রান্সপন্ডার বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হবে। বাকি ট্রান্সপন্ডার বিক্রি করেও বৈদাশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে