অবশেষে আলোর মুখ দেখছে কর্ণফুলী টানেল

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০০:১৬ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঋণচুক্তির পরও অর্থ ছাড় করছিল না চীন। এজন্য চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীতে টানেল নির্মাণকাজও শুরু করা যাচ্ছিল না। এ নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক ও চিঠি চালাচালির এক বছরের মাথায় অবশেষে ঋণের টাকার প্রথম কিস্তি দিতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে চীনের এক্সিম ব্যাংক। আগামী নভেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে ঋণের টাকা দেওয়ার ঘোষণা এসেছে। এতে দীর্ঘদিন ঝুলে থাকা টানেল নির্মাণ প্রকল্পটি গতি ফিরে পাবে বলে আশা করছেন সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা।

সম্প্রতি এ নিয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে (ইআরডি) বৈঠক হয়েছে এক্সিম ব্যাংকের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে। সেখানেই টাকা দেওয়ার ব্যাপারে এই প্রথম সময়সীমা তুলে ধরল ব্যাংকটি। এর আগে এ নিয়ে প্রসঙ্গ তুললে ‘শিগগিরই’ ঋণ কার্যকর হবে বলে বছরজুড়ে সময়ক্ষেপণ করে দেশটির এক্সিম ব্যাংক।

এদিকে রেলওয়ের অধীনে কর্ণফুলী নদীর কালুরঘাট পয়েন্টে রেল কাম রোড ও ব্রিজ নির্মাণের প্রকল্প রয়েছে। এ প্রকল্পে অর্থায়নে আশ্বাস দিয়েছিল দক্ষিণ কোরিয়া। কিন্তু এর পর আর অগ্রগতি নেই। ফলে শুরু করা যাচ্ছে না কালুরঘাট সেতুর নির্মাণকাজ। তাই তাগিদ দিয়ে দেশটির এক্সিম ব্যাংকের ইডিসিএফ অপারেশন্স বিভাগের পরিচালকের কাছে চিঠি দিচ্ছে রেল কর্তৃপক্ষ। অবশ্য এর আগে চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি প্রায় একই রকম চিঠি দেয় রেল। কিন্তু সাড়া মেলেনি। রেল কর্মকর্তারা বলছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ইডিসিএফ ঋণ দেবে ৯৯ মিলিয়ন ডলার আর বাকি ৩২.৩৪ মিলিয়ন ডলার বহন করবে বাংলাদেশ সরকার।

জানা গেছে, কর্ণফুলী নদীতে একদিক টানেল নির্মাণ করা হবে সেতু বিভাগের অধীনে। অপরদিকে থাকবে রেলওয়ের অধীনে রেল কাম সড়ক সেতু। তবে অগ্রগতির দিক থেকে এগিয়ে আছে টানেল নির্মাণ প্রকল্পটি। গত বছরের ১৪ অক্টোবর চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিন পিংয়ের বাংলাদেশ সফরে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণে ঋণ চুক্তি হয়। একই দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শি জিন পিং এ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন। ২০২০ সালের জুনের মধ্যে টানেলের নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা।

প্রকল্প পরিকল্পনা অনুযায়ী, কর্ণফুলী টানেল নির্মাণে ব্যয় হবে আট হাজার ৪৪৬ কোটি টাকা। এতে ২ শতাংশ সুদে ২০ বছর মেয়াদে চীন ঋণ দেবে প্রায় চার হাজার ৮০০ কোটি টাকা। তিন দশমিক চার কিলোমিটার দীর্ঘ টানেলের পূর্ব প্রান্তে পাঁচ কিলোমিটার এবং পশ্চিমে এক কিলোমিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে