রাজধানীতে স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যার চেষ্টা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

০৭ অক্টোবর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর বাড্ডায় সোমা আক্তার (২৫) নামে এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন তার স্বামী। গতকাল শুক্রবার দুপুরে মধ্য বাড্ডার বাজার রোডের লুৎফর টাওয়ারের পেছনে ৭১-ল নম্বর বাসায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতের স্বামী মনির হোসেন (৩০) ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ একই হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

আহত মনিরের চাচাতো ভাই সিরাজুল ইসলাম জানান, সপরিবারে তার ভাই লুৎফর টাওয়ারের পেছনের ওই বাসায় থাকতেন। তিনিও একই এলাকার বাসিন্দা। চিৎকার চেঁচামেচি শুনে গতকাল দুপুর আনুমানিক দেড়টার দিকে ভাই মনির হোসেনের বাসায় ছুটে যান। এ সময় ঘরের দরজার বাইরে গলা কাটা অবস্থায় তিনি সোমা আক্তারকে পড়ে থাকতে দেখেন। অদূরেই রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে ছিলেন তার স্বামীও। স্থানীয়দের সহায়তায় তাদের ঢামেক হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সোমাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার সময় সোমাদের পাশের ঘরেই তাদের ১০ বছরের সন্তান মারিয়া উপস্থিত ছিল বলেও জানান তিনি।

সোমার বড় বোন রেহানা আক্তার জানান, প্রায় ১২ বছর আগে সোমার সঙ্গে মনিরের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে মারিয়া নামে একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। সে স্থানীয় একটি স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী। বিয়ের পর তারা জানতে পারেন মনির হোসেন মাদকাসক্ত। এ নিয়ে তাদের পরিবারে নিত্য কলহ লেগেই ছিল। টাকার জন্য প্রায়ই সোমাকে মারধর করতেন মনির। এমনকি মাদক সেবনে বাধা পেলেও নির্যাতনের শিকার হতো তার বোন। এসব কারণেই মনির সোমাকে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক করেছে। মনিরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন রেহানা।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া জানান, মনির হোসেন আঙুলে ও গলায় ছুরিকাহত হয়েছেন।

বাড্ডা থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, দাম্পত্য কলহের জের ধরে স্ত্রী সোমাকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যার পর তার স্বামী সেই ছুরি নিজের গলায় চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। সোমার লাশের পাশে স্বামীকেও রক্তাক্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে। তিনি পুলিশি হেফাজতে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সুস্থ হলে এ হত্যাকা-ের বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে