ছাত্রীর আত্মহনন

৮ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি প্রেমিক

  হাবিব রহমান

২২ অক্টোবর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারিয়া ফেরদৌস তামান্নার (২৫) আত্মহননের ঘটনায় মামলায় আসামি প্ররোচনাকারী তার কথিত প্রেমিক সালমান ফারুকীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। গত ১৫ অক্টোবর দুপুরে কাফরুলের ১৩ নম্বর সেকশনের ‘এ’ ব্লকের ৩৪৪ নম্বর বাসা থেকে ওই শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ফারিয়ার পরিবারের অভিযোগ, রহস্যজনক কারণে এক প্রকার নীরব ভূমিকা পালন করছেন তদন্তসংশ্লিষ্টরা। তবে আসামিকে গ্রেপ্তারে চেষ্টার ত্রুটি নেই বলে দাবি করেছে কাফরুল থানাপুলিশ।

কাফরুলে নিজেদের বাসাতেই পরিবারের সঙ্গে থাকতেন ফারিয়া। শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্যাশন ডিজাইন বিভাগের শেষ সেমিস্টারের ছাত্রী ছিলেন তিনি। তার বাবার নাম আব্দুল মান্নান খান।

ফারিয়ার পারিবারিক সূত্র ও সহপাঠীরা জানান, সালমান ফারুকীর সঙ্গে ফারিয়ার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। একপর্যায়ে দুই পরিবার জানতে পারে এবং বিয়ের কথাও হয়। কিন্তু এর মধ্যে সালমানের মাদকগ্রহণের বিষয়টি জানতে পারেন ফারিয়া। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে ফারিয়াকে মারধর করেন সালমান। এর পর বাসায় ফিরে কারো সঙ্গে কথা বলেননি ফারিয়া। পরিবারের অভিযোগ, সালমানের অপমানের কারণেই ফারিয়া আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে।

ফারিয়ার বড়ভাই ইত্তেহাদ আল মামুন বলেন, সালমান নিয়মিত মাদকগ্রহণ করত। ফারিয়া বিষয়টি পরে জানতে পারে। তিনি দাবি করেন, ফারুকীকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিলে সব সত্য বেরিয়ে আসবে।

তবে অনেক চেষ্টা করেও সালমান বা তার পরিবারের কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে জানিয়েছে তার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র।

কাফরুল থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আল আমিন আমাদের সময়কে বলেন, মৃত্যুর আগে ফারিয়ার ওপর কোনো নির্যাতন হয়েছে কিনা সেটি জানতে ময়নাতদন্ত রিপোর্টের জন্য তারা অপেক্ষা করছেন। তিনি বলেন, ফারুকীকে গ্রেপ্তারে সর্বোচ্চ চেষ্টা হচ্ছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে