সাদুল্যাপুরে সড়ক পাকায় নিম্নমানের ইট-সুরকি

  গাইবান্ধা প্রতিনিধি

০৭ অক্টোবর ২০১৭, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার জামলারজান-ঠুটিয়াপুকুর সড়কের পাকুরিয়ার বিল থেকে কুঞ্জমহিপুর পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার সড়ক পাকাকরণ কাজে নিম্নমান ইটের সুরকি ও খোয়া ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। অভিযোগ সূত্রে বলা হয়েছে, সিডিউল অনুযায়ী পাকাকরণ কাজে ভালোমানের ইট ব্যবহারের কথা থাকলেও দেওয়া হচ্ছে নিম্নমানের ২ ও ৩ নম্বর ইটের খোয়া ও সুরকি। এর আগেও একবার নিম্নমানের ইট ব্যবহারের কারণে ওই সড়ক পাকাকরণের কাজ বন্ধ করেছিল এলাকাবাসী।

গত বছরের অক্টোবর ওই সড়ক পাকাকরণের কার্যাদেশ পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা অ্যান্ড মনি এন্টারপ্রাইজ। পরে ওই প্রতিষ্ঠান কাজটি বিক্রি করে দেয় স্থানীয় খোর্দ্দকোমরপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান নজলার রহমান নজেলের কাছে। এরপর থেকে নজেল প্রভাব খাটিয়ে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন। সাদুল্যাপুর উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৬ কিলোমিটারের সড়কটি পাকাকরণে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা। এক বছর ধরে চলা সড়কটি পাকাকরণের কাজ ২৪ অক্টোবর শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু এ পর্যন্ত কাজ হয়েছে মাত্র ২ কিলোমিটার।

ইদিলপুর ইউপির চেয়ারম্যান রাব্বী আবদুল্যাহ রিয়ন বলেন, নিম্নমানের কাজ হওয়ায় কিছুদিন আগে এলাকাবাসীর অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হলে কাজ বন্ধ রাখা হয়। এ সময় স্থানীয়দের ভালো কাজের আশ্বাস দিয়ে আবারও কাজ শুরু করেন ঠিকাদার। কিন্তু পাকাকরণ কাজে প্রতিনিয়ত নিম্নমান ইটের খোয়া ও সুরকি ব্যবহার করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে ঠিকাদার নজলার রহমান নজেল বলেন, বর্তমানে ইটের দাম অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়া আশপাশে ইট কিনতেও পাওয়া যাচ্ছে না। এরপরও বেশি দামে ইট কিনে নিয়ম অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে। এতে হয়তো সামান্য এদিক-সেদিক হতে পারে। সাদুল্যাপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী মাজহারুল ইসলাম জানান, অভিযোগ খতিয়ে দেখে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে