কিছু বিখ্যাত প্রেমকাহিনি

  অনলাইন ডেস্ক

১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ০০:০০ | আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ০১:০৩ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিল গেটস-মেলিন্ডা ফ্রে
১৯৮৭ সালে প্রডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে মাইক্রোসফটে যোগ দেন মেলিন্ডা। এর কিছুদিন পরই মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। দুজনের মধ্যে ধীরে ধীরে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। কয়েক মাস পর হঠাৎ করে মেলিন্ডাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে বসেন বিল। শুরুতে বিলের সে প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন তিনি। এক সময় সায় দেন। সম্পর্কটা যখন প্রায় সাত বছরে মাইক্রোসফট অধিপতি একটা আস্ত বিমান ভাড়া করে প্রেমিকাকে নিয়ে উড়ে গিয়েছিলেন নেব্রাস্কা রাজ্যের ওমাহায়। বিমানে আর কোনো যাত্রী না থাকায় বলা যাচ্ছে না যে, যাত্রাপথে বিল মেলিন্ডাকে ঠিক কী বলেছিলেন। তবে বিমান থেকে নেমেই এই জুটি সোজা একটি অভিজাত জুয়েলারির দোকানে ঢুকে পড়ে। তাদের অভ্যর্থনা জানাতে কে উপস্থিত ছিলেন? বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী ওয়ারেন বাফেট। আসলে তিনিই দোকানটা খোলা রাখার ব্যবস্থা করেছিলেন, যাতে এই প্রেমিক জুটি নিরিবিলি বাগদানের আংটি পছন্দ করতে পারে। বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের পুরো মানালে বে হোটেলটাই ভাড়া করেছিলেন বিল। ১৯৯৪ সালের ১ জানুয়ারি তারা বিয়ে করেন।

মার্ক জাকারবার্গ-প্রিসিলা চ্যান
২০০৩ সালে হার্ভার্ডের এক পার্টিতে বাথরুমের লাইনে দাঁড়িয়ে দুজনের পরিচয় হয়। এক সময় সম্পর্কটা প্রেমে পরিণত হয়। যেদিন প্রথম প্রিসিলাকে নিয়ে বাইরে ঘুরতে যান মার্ক, ওইদিন প্রেমিকাকে বলেছিলেন, মিডটার্ম বাদ দিয়ে তাকে নিয়ে ঘুরে বেড়াবেন তিনি। এক সময় ফেসবুক নিয়ে দারুণ ব্যস্ত হয়ে পড়েন মার্ক। সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে ন্যূনতম নিয়ম বেঁধে দেন প্রিসিলা। প্রতি সপ্তাহে অন্তত ১০০ মিনিট সময় দিতে হবে। ফেসবুক তৈরির পর প্রিসিলা প্রথম ব্যবহারকারীদের একজন। তিনি ২০০৪ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি ফেসবুকে প্রোফাইল খোলেন। তারা তাদের আত্মীয়দের বিয়ের দাওয়াত দেননি, তারা সবাইকে জানান যে, তারা প্রিসিলার গ্র্যাজুয়েশন সেলিব্রেট করতে যাচ্ছেন। কিন্তু সবাই যাওয়ার পর বুঝতে পারেন যে কী হতে চলেছে। সবাইকে সারপ্রাইজ করাই ছিল তাদের এই পরিকল্পনার মূল উদ্দেশ্য। মাত্র ১০০ জন অতিথি ছিল এই সাদামাটা বিয়ের অনুষ্ঠানে। তারা হানিমুন করেছেন ইতালিতে। মার্ক জাকারবার্গ ‘মান্দারিন’ ভাষা শিখেন ২০১০ সালে, যাতে করে তিনি তার স্ত্রীর পরিবারের সঙ্গে তাদের ভাষায় কথা বলতে পারেন। মার্ক ও প্রিসিলা তাদের ফেসবুকের শেয়ারের ৯৯ শতাংশই দান করে যাবেন। যার মূল্য বর্তমানে প্রায় ৪৮ বিলিয়ন ডলার। এই দম্পতির একমাত্র কন্যার নাম ম্যাস্ক।

সাকিব আল হাসান-উম্মে আহমেদ শিশির
বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের সঙ্গে বিয়ের আগে যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিনে পরিবারের সঙ্গে থাকেন উম্মে আহমেদ শিশির। সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক করেছেন মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তার শৈশব কিন্তু কেটেছে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আর পাওয়ার হাউসের স্কুলেই তিনি পড়ালেখা করতেন। ১০ বছর বয়সে বাবা-মার হাত ধরে পাড়ি জমিয়েছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। প্রবাসী হওয়ার আগে শিশিরের বাবা মমতাজ আহমেদ অগ্রণী ব্যাংকে চাকরি করতেন। সাকিব-শিশির জুটির প্রেমের শুরু ২০১০ সালে। সে সময় স্নাতক ডিগ্রি শেষ করে যুক্তরাজ্যে বেড়াতে গিয়েছিলেন শিশির আর সাকিব তখন উস্টারশায়ারে কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে ইংল্যান্ডে। কোনো এক অনুষ্ঠানে তার দেখা। প্রথম দেখাতে ভালো লাগা, এর পর আলাপচারিতা এবং মনবিনিময়। ওই সময় ইংল্যান্ডে তাদের দিনগুলো বেশ কেটেছে। খেলা শেষ করে সাকিব দেশে ফিরে আসেন, শিশির চলে যান উইসকনসিনে। সাকিব খেলায় মন দেন, শিশির পড়াশোনায়। কিন্তু কোনো ব্যস্ততা কিংবা দূরত্বই তাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রাখতে পারেনি। ইন্টারনেট আর মুঠোফোনই তখন তাদের সম্পর্কের সেতু তৈরি করে দিয়েছিল। এভাবেই দিন কাটতে থাকল, এক সময় গাঢ় হতে থাকে তাদের প্রেম। বাংলাদেশের ‘মোস্ট এলিজেবল ব্যাচেলর’ ভাবতে থাকেন বিয়ের কথা। কিন্তু বিয়ে তো শুধুই দুজনের সম্পর্ক নয়। বিয়ে দুটো পরিবারেরও। তাই তো পারিবারিকভাবেই এগোয় বাকি আলোচনা। ঠিক হয় বিশেষ দিনে বিয়ে হবে তাদের। তারিখ ঠিক করা হয় ২০১২ সালে ডিসেম্বরের ১২ তারিখ। বিশেষ দিনই তো ১২.১২.১২! রূপসী বাংলা হোটেলে ২০ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে হয় তাদের। এই দম্পতির কন্যা আলাইনা হাসান অব্রি ২০১৫ সালের ৯ নভেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করে।

লিওনেল মেসি-অ্যান্তোনেল্লা রোকুজ্জো
শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে বরাবরই রোনালদোর সঙ্গে টক্কর দেওয়া লিওনেল মেসি ব্যক্তিগত জীবনে কিন্তু একেবারে উল্টো। সেই ছোট্টবেলার বান্ধবী অ্যান্তোনিলা রোকুজ্জোর সঙ্গেই আছেন তিনি। অ্যান্তোনেল্লা রোকুজ্জোর সঙ্গে লিওনেল মেসির বাল্যকালের প্রেম থাকলেও তাদের সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হয় ২০০৭ সালে। ২০১০ সালে রোকুজ্জোকে কাতালানে নিয়ে আসেন। এর পর থেকে সেখানেই বাস করছেন দুজন। ইতোমধ্যে তাদের ঘর আলো করে দুটি সন্তানও এসেছে (বড় ছেলে থিয়াগোর বয়স ৪ বছর। আর ছোট ছেলে মাতেওর বয়স ১ বছর)। মেসিও ফুটবল ক্যারিয়ারে মডেল অ্যান্তোনেল্লা রোকুজ্জোর ভূমিকা অনেক। তাই তো কখনই তিনি ভুলে যাননি তার বাল্যকালের বান্ধবীকে। তার সঙ্গেই বাকিটা জীবন কাটিয়ে দিতে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন লিওনেল মেসি।

শাহরুখ খান-গৌরি ছিব্বর
শাহরুখ-গৌরির পরিচয় পর্বটা হয়েছিল ১৯৮৪ সালে, যখন তারা দুজনই স্কুলে পড়তেন। তখন শাহরুখের বয়স ছিল ১৯, আর গৌরির মাত্র ১৪ বছর। এক বন্ধুর বাড়িতে দেখা হয় শাহরুখ-গৌরির। প্রথম দেখাতেই গৌরির প্রেমে পড়ে যান শাহরুখ। গৌরিকে নাচতে দেখে শাহরুখ কোনোমতে সাহস সঞ্চয় করে তার কাছে যান ও একসঙ্গে নাচের প্রস্তাব দেন। গৌরি সঙ্গে সঙ্গেই প্রস্তাব খারিজ করে জানিয়ে দেন, তিনি বয়ফ্রেন্ডের জন্য অপেক্ষা করছেন। শাহরুখ জানতে পারেন কোনো বয়ফ্রেন্ড নয়, নিজের ভাইয়ের জন্য অপেক্ষা করছে গৌরি। তখন শাহরুখ এগিয়ে এসে বলেন, ‘আমাকেও তোমার একজন ভাই মনে করো।’ এভাবেই শুরু হয় দুজনের আলাপ, যা পরবর্তী সময়ে প্রেমে রূপ নেয়। শাহরুখের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ালেও পরিবারের সদস্যদের তা জানাতে সাহস পাননি গৌরি। কারণ তার বাবা ছিলেন ধর্মপ্রাণ ব্রাহ্মণ। প্রায় পাঁচ বছর লুকিয়ে সম্পর্ক রাখার পর নিজেদের ভালবাসার কথা বাড়ির সবাইকে বোঝানোর পর অভিভাবকদের আশীর্বাদ নিয়ে ১৯৯১ সালের ২৫ অক্টোবর হিন্দুমতে বিয়ে করেন শাহরুখ-গৌরি। তাদের প্রথম সন্তান আরিয়ান খান তাদের কন্যা সুহানা খান এবং সর্বশেষ আব্রাম খান।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
close
close